1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
পাটের দাম কমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় চাষীরা
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৫ পূর্বাহ্ন

পাটের দাম কমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় চাষীরা

  • প্রকাশিত : শনিবার, ৩১ জুলাই, ২০২১
  • ৬৭ জন পড়েছেন

গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবছর পাটের ভালো ফলন হয়েছে। কিন্তু হঠাৎ পাটের দাম কমে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় রয়েছে চাষিরা। যেখানে ঈদের আগে প্রতিমণ ৪ হাজার টাকা বিক্রি হয়েছে। সেখানে বর্তমানে ২ হাজার থেকে ২২’শ টাকা প্রতিমণ বিক্রি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন উপজেলার পাটচাষীরা। ইতিমধ্যে ক্ষেত থেকে পাট কাটা শুরু হয়েছে। আবার অনেকে পাটের আঁশ ছাড়ানোয় ব্যস্ত সময় পার করছে। কিন্তু পাটের নিম্নমুখী দামের কারণে শঙ্কায় দিন পার করছে কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় গত বছর ১৪’শ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছিলো, কিন্তু আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার ২’শ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ বেড়েছে। উপজেলায় মোট ১৬’শ হেক্টর জমিতে পাটের চাষ হয়েছে। গতবছর পাটের মণ বিক্রি হয়েছিলো ৪-৫ হাজার টাকা। তাই এবারও ভালো দাম পাওয়ার আশায় বেড়েছে পাটের আবাদ। কিন্তু হঠাৎ পাটের দাম নিম্নমুখী হওয়ায় কৃষকেরা শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছে। যদি কৃষকেরা এবার পাটের ভালো দাম না পায় তাহলে পাট চাষে আগ্রহ হারাবে তারা।

উপজেলার পাটগাতী ইউনিয়নের লেবুতলা গ্রামের কৃষক জাহিদ সর্দার বলেন, চাষীরা কয়েক বছর আগে পাট চাষ করে লোকসানে পড়ায় কয়েকবছর অল্প করে পাটের চাষ করেছিলো। কিন্তু গতবার পাটের ভালো পাওয়ায় এবছর লাভের আশায় কৃষকরা বেশি জমিতে পাট চাষ করেছিলো। যদি পাটচাষীরা এবার ভালো দাম না পায় তাহলে পাটচাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে।

বর্নি ইউনিয়নের পাটচাষী জুলহাস শেখ বলেন, গতবার পাটের ভালোদাম পাওয়ায় এবার দুই বিঘা জমিতে পাটের চাষ করেছি। জমিতে পাটের ফলনও ভালো হয়েছে। ঈদের আগে প্রতি মন পাটের দাম ৪ হাজার টাকা ছিল সেই সময় মনটা খুব ভালো ছিল। বর্তমানে দাম আছে ২ হাজার থেকে ২২’শ টাকা। এখন মনটা খুব খারাপ। পাটের দাম যদি না বাড়ে তাহলে যে খরচ খরচা হয়ছে তাতে পাট বিক্রির পর আমাদের কিছু থাকবে না। এখনতো দুশ্চিন্তায় পড়েছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ জামাল উদ্দিন বলেন, টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় প্রতিবছর পাটের আবাদ বাড়ছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবারও পাটের ফলন ভালো হয়েছে। কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে সবসময় কৃষকদের যাবতীয় পরামর্শ ও সার বীজ প্রদান করা হয়। গত বছর ১৪’শ হেক্টর ও এবার ১৬’শ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। গতবছর দাম ভালো পাওয়ায় এবার পাটের আবাদ বেড়েছে। এবার পাটের মৌসুম শুরুতে প্রতি মণ পাটের দাম ছিল চার হাজার টাকা করে। কিন্তু হঠাৎ করে পাটের দাম কমে যাওয়ায় কৃষকরা হতাশ হয়েছে। পাটের দাম যদি ৪ হাজার টাকা মণ থাকতো তাহলে তারা মোটামুটি লাভবান হতো। তবে আমরা আশাবাদী পাটের দাম আরো বাড়বে এবং কৃষক লাভবান হবে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed