1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
চা-বাগানের বালুচর সেজেছে কাশফুলের শুভ্রতায়
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪২ পূর্বাহ্ন

চা-বাগানের বালুচর সেজেছে কাশফুলের শুভ্রতায়

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৪২ জন পড়েছেন

এ যেন বাঙালিদের মনে দোলা দিতে বর্ষাকালকে বিদায় জানিয়ে শুভ্রতার প্রতীক হয়ে প্রতিবছর ফিরে আসে শরৎকাল। বালুচরে জেগে উঠা র্তীরবর্তী এক বৈচিত্রময় চা বাগানের মধ্যে বালুচর জুড়ে ফোঁটে সাদা সাদা কাশফুল। তাই তো বাঙালির হৃদয়ে আনন্দের আশা জাগায় শরতের এই কাশফুল।

এ কাশফুল শিশিরভেজা বালুচর জুড়ে সবুজ ঘাস, নীল আকাশ ও সাদা কাশফুল মনের হৃদয়ে শিহরণ জাগে প্রকৃতি প্রেমীদের।

তাইতো মৌলভীবাজারের কমলঞ্জের ভানুগাছ থেকে শ্রীমঙ্গল সড়কের ধরে কিছুদূর এগুলেই বধ্যভূমি-৭১, যেখানে গেলে মনে করিয়েদেয় স্বাধীনতা যুদ্ধে শ্রীমঙ্গলের মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের ইতিহাস। সেখান থেকে শুরু হয় সারি সারি চা-বাগান। মাথার উপর জমাট বাঁধা মেঘের ঢেউ আর নীল আকাশ।

সবুজ চা-বাগানের মাঝে দিয়ে পিচঢালা রাস্তা। এ পথ ধরে আধা কিলোমিটার সামনে চা-গবেষনা ইনিষ্টিটিউটের ধারে গেলেই দেখা মিলবে কাশবনের। মৃদু বাতাসের সাথে খেলা করছে কাশকন্যারা।

দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফুলের মধ্যে কাশফুল অন্যতম। কাশফুল আমাদের অনেক কিছুই শিখিয়েছে কোমলতা ও সরলতা। পৃথিবীর কোন দেশে ঘাসজাতীয় উদ্ভিদের ফুলের মত কাশফুলে কদর আছে কিনা জানা নেই। তবে বাংলাদেশের মানুষের মনে জয় করে নিয়েছে ঘাসজাতীয় কাশফুল। প্রকৃতির শত শত প্রেমীদের কাছে শরতের কাশফুল ব্যাপক জনপ্রিয়তা হয়ে উঠেছে। তাই তারা কাশবনে মনের শুভ্রতার খোঁজে বার বার ফিরে আসে। সাদা কাশফুল আর নীল সবুজ আকাশ দেখে মুগ্ধ বিহলতায়।

তবে, ১৫ থেকে ২০ বছর আগে চরাঞ্চলের চাষিরা বানিজ্যিক ভাবে কাশফুল চাষ করতো। এখন কাশফুল বিলীনের পথে। শুধুমাত্র নদ-নদীর তীরে কাশফুল দেখা যায়। আমাদের এই বাংলাদেশে সাধারণত তিন প্রজাতির কাশফুল আছে। সমতলে এক প্রজাতি কাশফুল এবং পাহাড়ে দুই প্রজাতির কাশফুল। তবে সবার কাছে সমতলের প্রজাতির কাশফুল বেশি জনপ্রিয় এবং খুব সহজেই কাছাকাছি দর্শনযোগ্য বলে অনেকে জানান। বাংলাদেশের সব নদীর র্তীরে প্রাকৃতিক জলাশয়ের ধারে বেশি কাশফুল জন্মে।

আশ্বিনের এই দিনে প্রকৃতিতে শরৎকালে নীল আকাশজুড়ে এক নরম সাদা মেঘের ভেলা হয়ে আপন মনে ঘুরে বেড়ায় জেলেদের পালতোলা নৌকায় চড়ে।

কাশবনে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীরা জানান, ‘সাদা আর সবুজের মিলনমেলার পাশ দিয়ে বয়ে চলা চেঙ্গী নদীর কূলে ঘুরে বেড়ানোর অনুভূতিই অন্যরকম। সাদা মেঘের সঙ্গে এই কাশফুলের সাদা রং মনকেও সাদা করে দেয়।’

এদিকে পাশ্ববতী কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়ন থেকে আসা ইউনিভারসিটি পড়–য়া প্রিয়াংকা সিন্হা জানান, চা বাগানের মধ্যে খানে বালুর চড়ে এত সুন্দর একটি কাশফুলের বাগান দেখার খুব ইচ্ছা ছিল, তাই আজ দেখতে এসেছি। আমি ভাবতেই পারিনি এতো সুন্দর মনোমুগ্ধকর দৃশ্য উপভোগ করবো।কল্পনার বাহিরে যে এতো ভাল লাগলো।এতো সুন্দর পরিবেশে সাদা কাশফুল আর নীল সবুজ আকাশ দেখে মুগ্ধ হয়েছি। দৃশ্য গুলো স্মৃতি হয়ে থাকবে।

শরতের এ সময়টাতে সাদা আর সবুজের সাথে একাত্ম হয়ে চা বাগানের মাঝ খানে ছুটে বেড়ায় কোমলমতি শিশু থেকে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থী ও বৃদ্ধরা। থোকা থোকা কাশবন পাহাড়ি এলাকার আকাবাকা জনপদে নতুন রূপে সাজিয়েছে। এ যেন বিধাতার অপরূপ দান।

স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী আব্দুস শুকুর ও সুমন মিয়া ও রুহুল ইসলাম হৃদয় বলেন, ‘ঋতুপরিক্রমায় আসা শরৎ ঋতু সীমান্তঘেঁষা চা-বাগানের মধ্যে খানে বালুচরে সাজিয়েছে অপরূপ সাজে। শরতের বিকেলে রোদ-বৃষ্টির লুকোচুরি উপেক্ষা করে কাশফুলের ছোঁয়া নিতে পানছড়িতে ছুটে আসছে বিভিন্ন বয়সী দর্শনার্থীরা। বালুচর যেন পরিণত হয়েছে সাদা আর সবুজের মিলনমেলায়।’

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed