1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
শ্রীমঙ্গলে অবৈধ উচ্ছেদ অভিযানে এক্সেভেটরে আগুন; উদ্ধার অভিযান স্থগিত- আটক ১
সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে অবৈধ উচ্ছেদ অভিযানে এক্সেভেটরে আগুন; উদ্ধার অভিযান স্থগিত- আটক ১

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৬৫ জন পড়েছেন

এস কে দাশ সুমন শ্রীমঙ্গলঃ

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার ভানুগাছ রোডস্থ রেল ক্রসিং এলাকায় বাংলাদেশ রেলওয়ের নিজস্ব জমিতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা স্থাপনা উচ্ছেদ করতে আসলে দুর্বৃত্বরা উচ্ছেদ কাজে ব্যবহারকৃত এক্সেভেটরে আগুন ধরিয়ে দেয়।

বৃহস্পতিবার ( ১৬ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আগুনের খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস শ্রীমঙ্গল ইউনিটের কর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে এক্সেভেটরের আগুন নিভিয়ে ফেলা হয়।

আগুন দেওয়ার ঘটনায় ঘটনাস্থল থেকে সন্দেহভাজন হিসেবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজন সন্দেহভাজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত ব্যাক্তি সোলেমান মিয়া (৩৫) একজন ফার্নিচার ব্যাবসায়ী।

উক্ত ঘটনায় স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, সকালে ভানুগাছ রোডে রেল ক্রসিং এলাকার উত্তর পাশের রেলওয়ের ২৮৭ শতক ভূমির উপর বিভিন্ন স্থাপনা উচ্ছেদ করার পরিকল্পনা করে রেল বিভাগ। সেই লক্ষে প্রস্তুতির অংশ হিসেবে সেখানে একটি এক্সেভেটর আনা হয়। এক্সেভেটরটি রেলগেট পয়েন্টে আসা মাত্র কয়েকজন দুর্বৃত্ব এক্সেভেটরের কেবিনে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। আগুনে যন্ত্রটির ড্রাইভার কেবিন ও নীচের অংশ সম্পূর্ণ ভষ্মিভূত হয়।

উল্লেখ্য রেলওয়ের এই সম্পত্তিটি দখলমুক্ত করতে বারবার উচ্ছেদের পরও পূনরায় সেটি অবৈধ দখলদারের হাতে চলে যায়। এবং দখলকৃত জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা করার কারণে উদ্ধার অভিযান আবারও পিছিয়ে যায়।

শ্রীমঙ্গল ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর ইনচার্জ মিজানুর রহমান জানান, এক্সেভেটরে আগুন লাগানোর খবরে আমরা দ্রুত ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিভিয়ে ফেলি। কারা এ আগুন লাগিয়েছে তা এই মুহুর্তে বলতে পারছি না। তিনি বলেন ঘটনা তদন্ত করার পর ক্ষয়ক্ষতি জানা যাবে।

বাংলাদেশ রেলওয়ের পূর্বাঞ্চল জোনের সহকারী এস্টেট অফিসার আতিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রায় ২৮৭ শতক জায়গা উদ্ধারে শ্রীমঙ্গলের ভানুগাছ সড়কে অভিযানের প্রস্তুতি ছিল। অভিযানের কাজের জন্য এক্সেভেটর যন্ত্রটি আনা হলে সেটি কে বা কাহারা আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুন লাগানোর ঘটনায় তিনি বলেন, রেলের একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সেখানে পাঠানো হয়েছে। তিনি এবিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

বিষয়টি নিয়ে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, রেল বিভাগের দখলকৃত জায়গা উদ্ধারে রেলের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এখানে এসেছেন। কিন্তু আসার পর জানতে পারেন এখানে এই সম্পত্তি নিয়ে কেউ মামলা করেছেন আদালতে, সেই কাগজপত্র আমরা দেখেছি। কিন্তু অভিযানের আগে মামলার কোন কাগজপত্র, বা ডকুমেন্ট তারা উপস্থাপন করেননি। আজ এই কাগজ দেখানোর আগেই, উচ্ছেদ এর জন্য আনা এক্সেভেটরে কেউ অগ্নিসংযোগ করেছে। এই বিষয়ে রেল বিভাগ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এখানে সিসিটিভি ফুটেজ আছে সেগুলো দেখে দুর্বৃত্বদের চিহ্নিত করা হবে।

ইউ এন ও আরো বলেন, যেহেতু এখানকার কেউ আদালতে মামলা করেছেন তাই আদালতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে আমরা আগামী মঙ্গলবার পর্যন্ত কাগজপত্র যাচাই – বাছাই করার জন্য আবেদনকারীদের সময় দেওয়া হয়েছে। এবং যারা এই মামলা করেছেন তারা আগামী মঙ্গলবার উপযুক্ত কাগজপত্র নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে আসবেন। সেগুলো যাচাই – বাছাই করা হবে। তারপর আমরা পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহন করবো।

শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নয়ন কারকুন বলেন, আমরা প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করেছি। জিজ্ঞাসাবাদের পর অগ্নিসংযোগ এর বিষয়ে বিস্তারিত বলা যাবে।

এই ঘটনার ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম,। সহকারী কমিশনার ভূমি মো. নেছার উদ্দিন, শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) নয়ন কারকুন সহ রেলওয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ দীর্ঘ ৩৮ বছর পর গত ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর বাংলাদেশ রেলওয়ের শতকোটি টাকার এই ভূমি উদ্ধারে অভিযান চালায় বেল বিভাগ। তখন শতাধিক আইনশৃংখলা বাহিনীর সহায়তায় ২টি বুলডোজার দিয়ে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে রেল বিভাগ। এতে শহরের প্রভাবশালীদের দখলে থাকা ভানুগাছ সড়কের মুক্তিযোদ্ধা কৃষি নার্সারী প্রকল্প, অভিজাত রেস্টুরেন্ট, গ্যাস সিলিন্ডারের গুদাম, ফার্নিচারের শোরোম, সেলুন, চা পাতার দোকান, বাসা বাড়ি, ভ্যারাইটিজ ষ্টোর, ফার্মেসী, হার্ডওয়্যারের দোকান, ওয়ার্কসপ, ট্রান্সপোর্ট অফিসসহ শতাধিক পাকা স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়। এরপর রেল বিভাগের দেখভালের অভাবে এই জমিগুলো আবারো দখল করে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করে দখলদাররা।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed