1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:১০ অপরাহ্ন

ঘূর্ণিঝড়ের আদ্যোপান্ত

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ৪৮৬ জন পড়েছেন

ঘূর্ণিঝড়ঃ

কোনো স্থানে বায়ুর তাপ বৃদ্ধি পেলে সেখানকার বায়ু উপরে উঠে যায়। ফলে বায়ুর চাপ ব্যাপকভাবে হ্রাস পায়। একে নিম্নচাপ বলে। এ নিম্নচাপ অঞ্চলে প্রায় বায়ুশূন্য অবস্থা থাকে বলে আশপাশের অঞ্চল থেকে বায়ু প্রবল বেগে ঘুরতে ঘুরতে নিম্নচাপ কেন্দ্রের দিকে ছুটে আসে। এ নিম্নচাপ কেন্দ্রমুখী প্রবল ঘূর্ণি বায়ু প্রবাহকে ঘূর্ণিঝড় বা সাইক্লোন বলে।

ঘূর্ণিঝড় কীভাবে সৃষ্টি হয়ঃ

বিষুবীয় অঞ্চলে আর্দ্র এবং উষ্ণ হাওয়া মহাসাগরের পৃষ্ঠ থেকে স্বাভাবিকভাবেই উপরের দিকে উঠতে থাকে। এভাবে উষ্ণ হাওয়া উপরের দিকে ওঠার ফলে এটি মহাসাগরীয় পৃষ্ঠে একটি কম বায়ুচাপের একটি এলাকা সৃষ্টি করে। তখন চারপাশ থেকে তুলনামূলক উচ্চ বায়ুচাপ বিশিষ্ট বাতাস সেই কম বায়ুচাপের এলাকায় প্রবেশ করে এবং সেটিও আর্দ্র এবং উষ্ণ হতে থাকে।

আগের মত এরাও উষ্ণতার জন্য উপরে উঠতে থাকে। এভাবে একটি চক্রের সৃষ্টি হয়। এই উষ্ণ বাতাস উপরে উঠে ঠান্ডা হওয়ার ফলে বাতাসে পানির অণুগুলো জমাট বেঁধে মেঘের তৈরী করে। ক্রমাগত এই উষ্ণ এবং আর্দ্র বাতাসের উপরে ওঠার কারণে একটি পাকের সৃষ্টি হয়। এই পাক তখন বাতাস এবং মেঘ নিয়ে ঘুরতে ঘুরতে আরও শক্তি সঞ্চয় করতে থাকে।
এ ক্ষেত্রে এর জ্বালানী হিসেবে কাজ করে মহাসাগরের উষ্ণ এবং আর্দ্র বাতাস। (আরও সঠিকভাবে বলতে গেলে মহাসাগরের পৃষ্ঠের তাপমাত্রা। কারণ তাপমাত্রার ফলেই বাতাস উষ্ণ হয়ে উপরের দিকে উঠে যায়।) ঠিক এই কারণেই এদেরকে বিষুব অঞ্চলে হতে দেখা যায়।
পাকের ঘূর্ণনগতি বাড়ার সাথে সাথে ঝড়টির কেন্দ্রে একটি ‘চোখ’ উৎপন্ন হয়।

যেহেতু এরকম ঝড়ের জ্বালানী আসে সাগরপৃষ্ঠের তাপমাত্রা থেকে, এজন্য এরা ভূমিতে গিয়ে ‘জ্বালানী’র অভাবে খুব একটা সুবিধা করতে পারে না। তবে মহাসাগরে থাকা অবস্থায় এর ব্যাপ্তি এবং গতির উপর নির্ভর করে এটি অনেকসময় ভূমিতে বেশ ভালোরকমের তান্ডব সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়।

এই ঝড়ের বাতাসের বেগ ঘন্টাপ্রতি ৩৯ মাইল এ পৌঁছলে একে ট্রপিকাল ঝড় বলা হয় এবং যখন ঘন্টাপ্রতি বাতাসের বেগ প্রায় ৭৪ মাইল হয়, তখন এটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ট্রপিকাল সাইক্লোন বলা হয়। এদের গতির উপরে ভিত্তি করে এদের বিভিন্ন বিভাগে ভাগ করা হয়।

ঘূর্ণিঝড়ের শ্রেণী বিভাজনঃ

বাতাসের তীব্রতা ও গতির ভিত্তিতে ঘূর্ণিঝড়ের শ্রেণী বিভাজন করা হয়। যেমন-

১. নিম্নচাপ-বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ২০ থেকে ৫০ কিলোমিটার।

২. গভীর নিম্নচাপ- বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৫১ দশমিক ৮৪ থেকে ৬১ দশমিক ৫৬ কিলোমিটার।

৩. ঘূর্ণিঝড়- বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৬১ দশমিক ৫৬ থেকে ৮৭ দশমিক ৪৮ কিলোমিটার।

৪. প্রবল ঘূর্ণিঝড়- বাতাসের গতিবেগ ঘণ্টায় ৮৯ দশমিক ১ থেকে ১১৮ দশমিক ২৬ কিলোমিটার।

৫. হারিকেনের তীব্রতা সম্পন্ন প্রবল ঘূর্ণিঝড়- বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ১১৯ দশমিক ৮৮ কিলোমিটারের ঊর্ধ্বে।

জলোচ্ছ্বাস: ঘূর্ণিঝড়ের একটি অনুষঙ্গঃ

ঘূর্ণিঝড়ের প্রবল ঝড়ো বাতাস সমুদ্রপৃষ্ঠে আকস্মিক উন্মাতাল তরঙ্গ এবং জলস্ফীতির সৃষ্টি করে যা জলোচ্ছ্বাস হিসেবে পরিচিত। জলোচ্ছ্বাস ঘূর্ণিঝড়ের একটি স্বাভাবিক অনুষঙ্গ। ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্র যখন সমুদ্রতীর অতিক্রম করে, প্রায় কাছাকাছি সময়েই জলোচ্ছ্বাস তীরবর্তী অঞ্চলে আঘাত হানে। প্রাপ্ত তথ্য থেকে দেখা যায় যে, বাংলাদেশে এ যাবৎ সংঘটিত জলোচ্ছ্বাসের সর্বোচ্চ উচ্চতা ছিল ১৩ মিটার। ঘূর্ণিঝড়কালীন সবচেয়ে বেশি ক্ষতিসাধন ঘটে এ জলোচ্ছ্বাসের দ্বারা, যা অনেক সময় উপকূলীয় দ্বীপ এবং সমুদ্র তীরবর্তী এলাকাসমূহকে বিরানভূমিতে পরিণত করে। বাংলা ভাষায় জলোচ্ছ্বাস, বান, জোয়ারঘটিত জলোচ্ছ্বাস, ঘূর্ণিঝড়ঘটিত জলোচ্ছ্বাস, ঝড়ো জলোচ্ছ্বাস প্রায় সমার্থক হিসেবে ব্যবহূত হয়ে থাকে।

একটি ঘূর্ণিঝড়ের সর্বাপেক্ষা ধ্বংসাত্মক উপাদান হলো এর সঙ্গে সংঘটিত জলোচ্ছ্বাস। পাঁচ/ছয় মিটার উচ্চতার সবেগে ধেয়ে আসা প্রাচীরাকৃতির জলরাশি দ্বারা সৃষ্ট বিরাট বিপর্যয় প্রতিরোধে কার্যকরী কিছু করার থাকে না। বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড় সংঘটনের সময়কাল হলো এপ্রিল থেকে মে এবং সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বর মাস। প্রতি বৎসর গড়ে পাঁচটি পর্যন্ত মারাত্মক ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত হানে এবং এর সঙ্গে সংঘটিত জলোচ্ছ্বাস কখনও কখনও দেশের ২০০ কিমি অভ্যন্তর পর্যন্ত পৌঁছে থাকে। বাতাসের গতিবেগ বৃদ্ধি পেলে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতাও বৃদ্ধি পায়। ঘূর্ণিঝড়জনিত জলোচ্ছ্বাসের সঙ্গে চন্দ্র সূর্যের একত্রিত আকর্ষণ যোগ হলে জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা আরও বেড়ে যায় এবং মারাত্মক বন্যার সৃষ্টি হয়।

ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণঃ

আদতে একসময় ঘূর্ণিঝড়ের নাম দেয়া হত না। গত কয়েক শতাব্দী ধরে আটলান্টিক ঝড়ের নাম দেয়া হয়ে আসছে যেটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পর্যন্ত বলবৎ থাকে। এরপরে আবহাওয়াবিদরা মিলে মেয়েদের নামে ঝড়গুলোর নামকরণের সিদ্ধান্ত নেন। ১৯৫৩ সালে US Weather Service আনুষ্ঠানিকভাবে Q, U, X, Y, Z ব্যতীত A থেকে W পর্যন্ত আদ্যক্ষরে মেয়েদের নামে ঝড়ের নামকরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করে। এ নিয়ে ৬০ এবং ৭০ এর দশকে নারীদের প্রতিবাদের মুখে অবশেষে ১৯৭৮ সালে ছেলেদের নামেও ঝড়ের নামকরণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এসব ঝড়ের নামকরণের একটি সুন্দর ব্যাবস্থা ছিলো। বছরের প্রথম ঝড়ের নাম রাখা হত A আদ্যক্ষর দিয়ে, দ্বিতীয় ঝড়ের নাম রাখা হত B আদ্যক্ষর দিয়ে, এভাবে চলতে থাকতো। আবার জোড় সালের বিজোড় ঝড়গুলোর (মনে করি ২০১৪ সালের ৩য় ঝড়) নাম রাখা হত ছেলেদের নামে আর বিজোড় সালের বিজোড় ঝড়গুলোর নাম রাখা হত মেয়েদের নামে!

সাইক্লোনের ঝড়ের নামকরণের ক্ষেত্রে World Meteorological Organization এর পৃষ্ঠপোষকতায় কিছু অঞ্চল ভাগ করে দেয়া হয়েছে। সেই অঞ্চলের দেশগুলো মিটিং এর মাধ্যমে ঝড়গুলোর নাম ঠিক করে থাকে। বাংলাদেশ পড়েছে ভারতীয় মহাসাগর অঞ্চলে। আমাদের অঞ্চলে আমাদের দেশের সাথে আরও আছে, ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড এবং ওমান। এসব দেশগুলো ইতোমধ্যে বেশ কিছু নাম দিয়ে রেখেছে।

যখন ঝড় হয়, তখন পর্যায়ক্রমিকভাবে এদের সেই নামটি দেয়া হয়ে থাকে। কবে ঝড় হবে, সেটি আমরা না বলতে পারলেও আগামী ঝড়ের কী নাম হবে, সেটি কিন্ত আমরা জানি!

মোঃ আলী মর্তুজা                                                 সহকারী শিক্ষক

কমলগঞ্জ সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়

মৌলভীবাজার,সিলেট  

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!