1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
কৃষি প্রণোদনার ঋণ পাওয়া নিয়ে সংশয়ে পাবনার প্রান্তিক চাষিরা
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৫৪ অপরাহ্ন

কৃষি প্রণোদনার ঋণ পাওয়া নিয়ে সংশয়ে পাবনার প্রান্তিক চাষিরা

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ৩৪৪ জন পড়েছেন

ডাক অনলাইন ডেস্কঃ  পাবনার মির্জাপুর গ্রামের কৃষক আনিসুর রহমান। রমজান মাস টার্গেট করে মৌখিক চুক্তিতে দশ বিঘা জমি লিজ নিয়ে চাষ করেছিলেন তরমুজ, শসা, বাঙ্গিসহ নানা ধরনের মৌসুমী ফল। ফলন ভালো হলেও করোনাভাইরাসের লকডাউনে ঢাকা থেকে ক্রেতা না আসায় পণ্য বিক্রি না করতে পেরে পড়েছেন চরম লোকসানের মুখে।

সম্প্রতি, সরকার কৃষি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করলে নতুন করে আবাদের জন্য ব্যাংক ঋণের চেষ্টা করেন।

তবে, বর্গাচাষি আনিসের নেই জমির দলিল, লিখিত চুক্তি করতেও রাজি নন জমির মালিক। কাগজপত্রের জটিলতা আর শর্তের বেড়াজালে ঋণ না পেয়ে আনিসের কণ্ঠে ঝড়ে পড়ে রাজ্যের হতাশা।
আনিসুর বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে এবার রমজানে আমার ফসল ঢাকায় পাঠাতে পারিনি।

স্থানীয় বাজারেও ক্রেতা কম তাই কম দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। লাভ তো দূরের কথা উৎপাদন খরচই উঠবে না। করোনায় প্রণোদনার কথা শুনে কৃষি ঋণ চাইতে ব্যাংকে গিয়ে শুনি আগের মতোই জমির কাগজপত্র বন্ধক দিতে হবে।

জমির মালিক কাগজ দিতে চায় না, চুক্তি করতেও অনেক খরচের ব্যাপার তাই ব্যাংক ঋণ পাওয়ার আশা ছেড়েই দিয়েছি।

চাষিরা জানান, গ্রামাঞ্চলের প্রান্তিক কৃষকের অধিকাংশই আনিসুরের মত বর্গা চাষি। কাগজপত্রের জটিলতা, আর সই সাক্ষরের ঝামেলা এড়িয়ে আবাদ শেষে ফসল ভাগাভাগির মৌখিক চুক্তিতেই সহজ সমাধান খোঁজেন তারা।

কৃষি ঋণ কিংবা প্রণোদনা পেতে কোনমতে ব্যাংকের দরজায় পৌঁছলেও জটিল শর্ত আর কাগজপত্রের হিসাব মেলাতেই হিমশিম অবস্থা হয় তাদের।

নীতিমালার ফাঁক ফোকড়ে প্রান্তিক চাষিদের জন্য সরকারের দেয়া সহযোগিতা ভোগ করেন সুযোগ সন্ধানী জমির মালিকেরাই।

আউশ, খরিপের মতই করোনার কৃষি প্রণোদনায় ঋণ বিতরণে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনাও একই ধরনের, তাই সুবিধা প্রাপ্তি নিয়ে সংশয়ে প্রান্তিক চাষিরা।

কৃষি বিভাগ জানায়, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের সহায়তা ও উৎপাদন অব্যাহত রাখতে কৃষি প্রণোদনার ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

তবে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অনিয়ম, দুর্নীতির অতীত অভিজ্ঞতা ও জটিল শর্তের কারণে এসব সহায়তা পাওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন ভূমিহীন প্রান্তিক চাষিরা। প্রকৃত চাষিদের কাছে প্রণোদনার সুবিধা পৌঁছাতে বিতরণ ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা ও সমন্বিত উদ্যোগের তাগিদ দিয়েছেন কৃষিবিদরা।

পাবনা সদর উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম মুন্নু বলেন, জমির কাগজপত্র জমা দেয়ার বাধ্যবাধকতার কারণে প্রণোদনার কৃষি ঋণের সুবিধা প্রান্তিক চাষিদের কাছে পৌঁছে না। বড় বড় ব্যবসায়ী যারা গ্রামে জমি কিনে রেখেছেন তারা এই ঋণের সুবিধা ভোগ করেন।

এক্ষেত্রে কৃষক কার্ডের মাধ্যমে ডাটাবেজ তৈরি করে ঋণ সুবিধা প্রদান করণে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক চাষিদের কাছে এই সুবিধা পৌঁছানো সম্ভব হত।

তিনি আরও বলেন, কেবল ঋণ সহায়তাই নয় সরকারের নিয়মিত কৃষি প্রণোদনার অংশ হিসেবে বীজ, সার ও কৃষি উপকরণ বিতরণ হয় ইউনিয়ন কৃষি পুনর্বাসন কমিটির মাধ্যমে।

ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের অনিয়ম, স্বজনপ্রীতির কারণে সেখানেও বঞ্চিত হন প্রান্তিক চাষিরা। এক্ষেত্রে প্রণোদনা বিতরণ ব্যবস্থায় বড় ধরনের সংস্কার প্রয়োজন।

পাবনা সদর উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, কৃষি পুনর্বাসন কমিটিতে আমার মত কৃষি কর্মকর্তারা সদস্য সচিব হলেও তাদের কোনো ক্ষমতাই নেই। ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বররা নিজেদের মতো করে এসব উপকরণ ভাগ বাটোয়ারা করেন।

ইচ্ছা থাকলেও আমরা প্রকৃত কৃষককে এসব সুবিধা দিতে পারি না।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পাবনার উপপরিচালক কৃষিবিদ আজাহার আলী বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের স্বজনপ্রীতি ও প্রভাব বিস্তারের কারণে প্রান্তিক চাষিদের কাছে প্রণোদনার সুবিধা পৌঁছানো একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

এছাড়া, বর্গাচাষিদের জন্য কৃষিঋণে যেসব শর্ত দেয়া হয়, তা আরও সহজ করা প্রয়োজন। আমরা এই সংকটগুলোর বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। আশা করছি তারা দ্রুতই এ বিষয়টি বিবেচনা করবেন।

সরকারি প্রণোদনার পাশাপাশি পাবনায় সদর আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্সের সহযোগিতায় কৃষি বিভাগ বিনামূল্যে প্রান্তিক চাষিদের সবজি বীজ প্রদান শুরু করেছে। করোনা দুর্যোগের প্রণোদনা ও সরকারি সুবিধা প্রদানে স্বচ্ছতা নিশ্চিতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করব।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!