1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শ্রীমঙ্গলে ৫হাজার পরিবারের হাতে পৌঁছেছে থানা-পুলিশের খাদ্য সহায়তা
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে ৫হাজার পরিবারের হাতে পৌঁছেছে থানা-পুলিশের খাদ্য সহায়তা

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ৩৩৮ জন পড়েছেন

আব্দুস শুকুর,শ্রীমঙ্গল(মৌলভীবাজার): শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের মানবিক সহায়তার আওতায় ১৮ই মে সোমবার রাতে করোনা ভাইরাসের কারনে কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রীমঙ্গল উপজেলাধীন ভূনবীর ইউনিয়নের লইয়ারকুল ও সরকার বাজার এলাকায় ১০৫ টি পরিবারের মধ্যে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের উদ্যোগে ১০কেজি করে চাল খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। এদিকে রাত ১২ টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের দিলবর নগর গ্রামে হতদরিদ্র আরও ২২টি পরিবারের মধ্যে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেন তারা। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশও তার প্রভাব পড়েছে। লকডাউন চলছে দেশজুড়ে। কর্মহীন হয়ে পড়েছে লক্ষ লক্ষ মানুষ। ইতিমধ্যে সরকার, সামাজিক সংগঠন, ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে হতদরিদ্র মধ্যবিত্ত কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের মধ্যে ব্যাপক হারে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম প্রশংসনীয় ভূমিকা পালন করেছেন শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ। শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ তাদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে এ পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার হতদরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন। তারা রাতের আঁধারে শহর থেকে শুরু করে উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম পর্যন্ত বাড়ি বাড়ি নিয়ে খাবার পৌঁছে দেন। যে কোনো সময় ফোন করে যদি কেউ খাবার নেই বলে সাথে সাথে তারা খাবার নিয়ে পৌঁছে যায় তাদের ঘরে। এমন বহু নজির রয়েছে। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে পৌঁছেছে শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশের খাদ্যসহায়তা। ভূনবীর ইউনিয়নের আঐ গ্রামের বাসিন্দা রহিছ উল্লাহ (৬৫) বলেন জীবন দশায় পুলিশের অনেক কর্মকাণ্ড দেখেছি কিন্তু এমন মানবিক আচরণ পুলিশের কখনো দেখিনি। তিনি আরও বলেন আমরা জানতাম পুলিশের কাজ শুধু আসামি ধরা। ৬৫ বছর বয়সে এসে দেখলাম পুলিশ দিনরাত মানুষের ঘরে ঘরে খাবার নিয়ে যাচ্ছে।

শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়নের দিলবরনগর গ্রামের বাসিন্দা খোরশেদ আলম (৫৭) বলেন শ্রীমঙ্গল থানা পুলিশ যে নজির সৃষ্টি করেছে আমার জীবন দশায় এমন নজির দেখিনি। পুলিশ মানুষের ঘরে ঘরে খাবার নিয়ে যাচ্ছে জীবনের শেষ প্রান্তে এসে পুলিশের এমন আচরণ দেখে সত্যিই আমরা গর্বিত। আমাদের দেশের পুলিশ এই করোনার সময় তারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সকল মানবতাকে হার মানিয়েছে। জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান বলেন জেলা পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ পিপিএম (বার) এর নির্দেশনায় আমরা চেষ্টা করেছি মানুষের জন্য কিছু করার। কতটুকু করতে পেরেছি তা জানিনা। তিনি আরও বলেন তবে এটুকু বলতে পারি জীবনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দেশের জন্য মানুষের কল্যাণে কাজ করে যাবো। আমরা বেঁচে থাকতে উপজেলার একটি পরিবারকেও অনাহারে থাকতে দেব না। উল্লেখ্য পুরো উপজেলায় খাদ্য সহায়তা প্রদানে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. আশরাফুজ্জামান ও শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আব্দুছ ছালেক এর নেতৃত্বে নিরলস পরিশ্রম করেন শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সোহেল রানা, পুলিশ পরিদর্শক অপারেশন নয়ন কারকুন সহ থানার সকল অফিসার ফোর্স এবং অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!