1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ১২:৩৭ অপরাহ্ন

দিনাজপুরে লিচুর ভালো ফলনেও লোকসানের শঙ্কায় চাষিরা

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৯ মে, ২০২০
  • ৩১৭ জন পড়েছেন

ডাক অনলাইন ডেস্কঃ  দিনাজপুর জেলা লিচুর জন্য বিখ্যাত। যেকোনো বিরূপ পরিবেশে পচনশীল লিচু পেকে গেলে গুদামজাত করার কোনো উপায় নেই। এ বছর দিনাজপুরের লিচু বাগানগুলোতে ভালো ফলন হলেও বাজারজাতকরণ নিয়ে শঙ্কায় পড়েছেন লিচু ব্যবসায়ীরা।

করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘদিন সারাদেশের মানুষের কর্মহীনতা এবং গণপরিবহন বন্ধ থাকায় দিনাজপুরের সুস্বাদু লিচুর ক্রেতা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন বাগান মালিক ও লিচু ব্যবসায়ীরা।

যদিও সরকারের পক্ষ থেকে কৃষিক্ষেত্রে খাদ্য অপচয় ও ক্ষতি কমানোর লক্ষ্যে মৌসুমী ফলের পরিবহন ও বিপণনের উন্নয়নের জন্য কৃষি মন্ত্রণালয় দশ দফা উদ্যোগ ও সুপারিশ ঘোষণা করেছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সুপারিশগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে- খাদ্যপণ্য সরবরাহ করার পর ফিরে আসা খালি ট্রাকের জন্য বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল কমানো, যেসব অঞ্চলে ফলন উৎপাদন বেশি সেসব জেলা থেকে ব্যবসায়ীদের স্বাভাবিক চলাচলের ব্যবস্থা এবং জেলাগুলোতে ব্যাংকিংয়ের সময় বাড়ানো।

তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, দিনাজপুর থেকে রাজধানী ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকায় লিচু নিয়ে গেলেও পর্যাপ্ত ক্রেতার অভাব হতে পারে। বাধ্য হয়ে সস্তা দামে লিচু বিক্রি করতে হবে এবার।

বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, লিচুর বাগানগুলোতে মূলত ফুল বা ফল আসার আগেও বিক্রি হয় আবার পরেও বিক্রি হয়। তবে এবার বিরূপ পরিস্থিতির কারণে অনেক বাগান বিক্রিও হয়নি।

দিনাজপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবার দিনাজপুর জেলার ১৩টি উপজেলায় লিচুর আবাদ হয়েছে ৬ হাজার ৫৭৫ হেক্টর বিঘা জমিতে। এসব বাগানে লিচুর গাছ আছে প্রায় সাড়ে ৭ লক্ষাধিক।

এছাড়া দিনাজপুরের কমবেশি অনেকের বসতবাড়িতেই আছে লিচুর গাছ।

চলতি মৌসুমে জেলায় লিচুর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ হাজার মেট্রিক টনের বেশি।
মূলত দিনাজপুরে কয়েক জাতের লিচরু আবাদ হয়ে থাকে। তার মধ্যে বাজারে অল্পভাবে উঠতে শুরু করেছে মাদ্রাজি জাতের লিচু। এছাড়াও বোম্বাই, চায়না-১, ২ ও ৩ এবং বেদানা ও কাঠালি জাতের লিচু পাওয়া যায়। দিনাজপুরের লিচু সুস্বাদু থাকায় সারাদেশেই সুনাম রয়েছে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার মাসিমপুর এলাকার লিচুর বাগান মালিক মো. রায়হান ইসলাম বলেন, ‘এবার লিচু বাগান কোন ব্যবসায়ীই দাম করছে না। অথচ এর আগে ফলন আসার পর ব্যবসায়ীরা আমাদের কাছে ধরণা দিত। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে লিচুর প্রতি ব্যবসায়ীদের তেমন আগ্রহ নেই। যে বাগান গত বার ২ লাখ টাকায় বিক্রি করেছিলাম সেই বাগান এবার ১ লাখ টাকাও দাম করছে না। লিচু নিয়ে বেশ শঙ্কায় আছি। ’

ঢাকা থেকে লিচুর বাগান কিনে ব্যবসা করেন মো. লিয়াকত আলী।

তিনি বলেন, ‘এবার লিচুর প্রতি আমাদের খুব একটা আগ্রহ নেই। আমি গত বছর বেশ কয়েকটি বাগান কিনেছিলাম। কিন্তু এবার বাগান কিনতে ভয় পাচ্ছি। কারণ, লিচুর ক্রেতা সংকটের কারণে লোকসান গুণতে হতে পারে। পরিবহন স্বাভাবিক হলেও ক্রেতারা লিচু কিনতে কতটা আগ্রহী হবেন সেদিকটাই এখন দেখার বিষয়। ’

দিনাজপুরের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. তৌহিদুল ইকবাল বলেন, ‘এবার দিনাজপুরে লিচুর ফলন ভালো হয়েছে। গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার জেলায় লিচুর আবাদও বেড়েছে। আমরা চাষিদের কীটনাশকের বিষয়েও পরামর্শ দিচ্ছি। বাগান মালিক ও লিচু ব্যবসায়ীদের ঈদের পর লিচু ভাঙার পরামর্শ দিচ্ছি। দেশের লিচুর চাহিদা পূরণ করার ক্ষেত্রে দিনাজপুর অন্যতম। তবে এবার করোনাভাইরাসের কারণে লিচুতে লোকসানেরও আশঙ্কা একেবারে উড়িয়ে দিচ্ছি না। তবে লোকসান কাটাতে আমরা বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করছি। ’

এ বিষয়ে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম বলেন, ‘গত রবিবার (১৭ মে) আমরা লিচু বাগান মালিক, ব্যবসায়ী, কৃষি কর্মকর্তা, পুলিশ প্রশাসন, আরদদারদের নিয়ে মিটিং করি। সেখান থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, আমরা শহরের কালিতলা বাজার থেকে দিনাজপুর গোর-এ শহীদ বড় মাঠে (পুলিশ ক্যাফেটেরিয়ার সামনে) লিচুর খুচরা ও পাইকারী বাজারের একমুখী দোকান লাগাব। যাতে ক্রেতারা একদিক থেকে কেনাকাটা করে সোজা অন্য দিক দিয়ে বের হয়ে যেতে পারে।

এছাড়াও ব্যবসায়ীদের জন্য হোটেল ভাড়া স্বাভাবিক রাখা, তাদেরকে প্রত্যয়নপত্র দিয়ে অন্যত্র যাওয়া-আসা, কোথাও যাতে চাঁদাবাজি না হয় সেজন্য নিরাপত্তা ও গোর-এ শহীদ বড় মাঠে নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য সোলার বাতির ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে করে লিচু চাষীরা লোকসানের মুখে না পড়ে। ’

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!