1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২০ পূর্বাহ্ন

সম্পত্তি বিক্রি করে তারা যেতে চেয়েছিল ‘স্বপ্নের’ ইতালি

  • প্রকাশিত : শনিবার, ৩০ মে, ২০২০
  • ১৩৬ জন পড়েছেন

ডাক অনলাইন ডেস্কঃ  লিবিয়ায় মানবপাচারকারী চক্রের গুলিতে নিহতদের মধ্যে ভৈরবের পাঁচজন রয়েছেন। এ জেলার তিনজন গুরুতর আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তালিকায় তাদের নাম ও এলাকা উল্লেখ আছে।

নিহতরা হলেন, ভৈরব উপজেলার আকবরনগর গ্রামের জিন্নত আলীর ছেলে মাহবুব (২১), রুসুলপুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে মো. আকাশ (২৬), শ্রীনগরের বাচ্ছু মিয়ার ছেলে সাকিব, ভৈরব বাজারের অমিত দাসের ছেলে রাজন, শম্ভুপুরের শাকিল ।

এ ছাড়া সম্ভুপুর গ্রামের আ. সাত্তার মিয়ার ছেলে মো. জানু মিয়া (২৭), মৌটুপী গ্রামের আবদুল আলীর ছেলে মো. সোহাগ (২০), জগন্নাথপুর গ্রামের সজল গুরুতর আহত হন।

ঘটনায় বাংলাদেশি ২৬ জন ও আফ্রিকার চারজন মৃত্যুবরণ করে এবং কয়েকজন গুরুতর আহত হয়। আহতরা লিবিয়ার ত্রিপলীর এক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

নিহতদের পরিবারের সদস্যরা জানান, বৃহস্পতিবার রাতে তারা ঘটনার খবর পান। তারা সবাই লিবিয়া থেকে স্বপ্নের দেশ ইতালি যেতে চেয়েছিল। সংসারের সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে তারা অনেকেই বাড়ি, জমি বিক্রি করেন।

এখন লাশের অপেক্ষায় রয়েছে পরিবারের সদস্যরা। প্রত্যেকের পরিবারে চলছে কান্নার মাতম।

জানা গেছে, নিহতরা প্রত্যেকে সম্পত্তি বিক্রি করে ৫/৬ লাখ টাকা দালালকে দিয়ে লিবিয়ায় যান।

কথা ছিল লিবিয়ায় পৌঁছানোর পর তাদের সুবিধাজনক সময়ে সাগর পাড়ি দিয়ে অবৈধ পথে ইতালি পাঠানো হবে। কিন্তু তারা লিবিয়ায় পৌঁছলে সেখানে একটি চক্র তাদের জিম্মি করে। তারা টাকা দাবি করে। একটি গুদামে বন্দী করে রাখে। এদের মধ্য দুই-একজন লিবিয়ায় কয়েকমাস কাজও করেছেন। প্রবাসে যাওয়া সবাই দরিদ্র পরিবারের হওয়ায় কেউ পাচারকারীদের দাবি অনুযায়ী বাড়ি থেকে টাকা দিতে পারছিল না। টাকা না পেয়ে পাচারকারীরা তাদের নির্যাতন করেছে। তারা কয়েকজনকে চাপ সৃষ্টি করে বাড়িতে ফোন করে জানাতে বাধ্য করেছে, টাকা না দিলে সবাইকে মেরে ফেলা হবে।
নিহতদের পরিবারের সবার দাবি আমরা আমাদের সন্তানদের লাশ দেখতে চাই। সরকারের কাছে তাদের দাবি ঘটনার বিচারের ব্যবস্থা করে লাশ দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্হা করতে হবে।
ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি) মো. শাহিন জানান, ঘটনার খবর পাওয়ামাত্র নিহতদের ঠিকানা, পরিচয় সংগ্রহ করতে পুলিশ মাঠে নেমেছে। এ ছাড়া পুলিশের পক্ষ থেকে ঘটনাটি উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। কর্তৃপক্ষের কোনো নির্দেশনা আসলে আমরা সেভাবে কাজ করব।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা জানান, ঘটনার খবর পেয়ে আমি প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে বলেছি খোঁজখবর নিয়ে নাম, ঠিকানা সংগ্রহ করতে। সরকার থেকে কোনো নির্দেশনা আসলে আমি সেভাবে ব্যবস্হা গ্রহণ করব।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!