1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
কমলগঞ্জে অস্তিত্ববিহিন মসজিদের ইমাম সেজে সরকারি অর্থ আত্মসাত !
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১:১৬ অপরাহ্ন

কমলগঞ্জে অস্তিত্ববিহিন মসজিদের ইমাম সেজে সরকারি অর্থ আত্মসাত !

  • প্রকাশিত : বুধবার, ১০ জুন, ২০২০
  • ১৬৫০ জন পড়েছেন

ডাক নিজস্ব প্রতিনিধি : করোনা দুর্যোগের কারণে সারা দেশে মসজিদ ও ইমামদের আর্থিক সহায়তার ৫ হাজার টাকা চেক প্রদান করা হয়েছে।

সম্প্রতি ৬ জুন শনিবার মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে আনুষ্ঠানিকভাবে ৩০০ মসিজেদের ইমামদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক বিতরণ করেন মৌলভীবাজার-৪ আসনের সাংসদ উপাধ্যক্ষ ড. এম এ শহীদ।
আদমপুর ইউনিয়নের পূর্ব জালালপুর গ্রামের মুফতি নামধারী আব্দুল জলিল অস্তিত্ববিহিন “ সিতারা বিবি জামে মসজিদ” দেখিয়ে সে মসজিদের ইমাম সেজে প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের ৫ হাজার টাকার চেক গ্রহন করেন। এ নিয়ে এলাকাবাসী নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে বরাদ্ধকৃত চেকটির টাকা উত্তোলনে ব্যাংকে আটকিয়ে সেটি উদ্ধার করা হয়।
আদমপুর ইউনিয়নের পূর্ব জালালপুর গ্রামের “বাইতুন নাজাত জামে মসজিদ” পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আজিজ বলেন, মুফতি নামধারী আব্দুল জলিল কমলগঞ্জ উপজেলার কোন মসজিদের ইমাম নন। তিনি সম্প্রতি প্রতারনা করে “বাইতুন নাজাত জামে মসজিদ”-এর নাম কেটে সিতারা বিবি জামে মসজিদ নামে একটি মসজিদের নাম তালিকাভুক্ত করেন। তিনি সে মসজিদের ইমাম সেজে প্রধানমন্ত্রী অনুদানের ৫ হাজার টাকার চেক গ্রহন করেন। বিষয়টি টের পেয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসীর সম্মতিক্রমে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার গত ৮ জুন একটি লিখিত অভিযোগ করেন। ফলে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সিতারা বিবি জামে মসজিদের নামে আসা চেকটির টাকা উত্তোলনে আটকিয়ে রাখেন।
বুধবার (১০ জুন) আদমপুরের পূর্ব জালালপুর গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিতারা বিবি জামে মসজিদ নামে কোন মসজিদের অস্তিত্ব নেই। এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন,আব্দুল জলিল নিজেকে একজন মুফতি দাবী করলেও তিনি একজন প্রতারক। তাই এলাকাবাসী জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যেমে তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছেন।
এদিকে অভিযুক্ত মুফতি আব্দুল জলিলকে না পেয়ে তার মুঠোফোনে দফায় দফায় ফোন দিলেও ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ৬ জুন চেক প্রদানের পরদিনই অভিযোগ উঠে রহিমপুর ইউনিয়নের কালেঙ্গা এলাকার মসজিদ দেখিয়ে ইমাম সেজে কেরামত আলী নামে এক প্রতারক ৫ হাজার টাকার চেক গ্রহন করেছিলেন। একইভাবে পতনউষার ইউনিয়নের মহেষপুর গ্রামে প্রতারনা করে মাদ্রাসাকে মসজিদ দেখিয়ে ইমাম সেজে মাওলানা ফয়ছল আহমদ নামে এক ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রী অনুদানের চেক গ্রহন করেছিলেন।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক বলেন, অভিযোগ পেয়েই দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করে চেকগুলো উদ্ধার করেছেন। পরবর্তীতে এ নিয়ে আইনী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও তিনি জানান।

 

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!