1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
বুধবার, ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২১ অপরাহ্ন

দুই নেতার স্মরণে সংসদে আবেগাপ্লুত শেখ হাসিনা

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ২৯০ জন পড়েছেন

ঢাকা: আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে নিয়ে সংসদে উপস্থাপিত শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে আবেগাপ্লুত ও বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি তিনি ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহকে স্মরণ করেও আপ্লুত হয়ে পড়েন।

তিনি বলেন, একই দিনে দুইজন নেতাকে হারানোকে খুবই কষ্টকর। আমার খুব কষ্ট হচ্ছে বলতে। অনেক কষ্ট বুকে নিয়ে আজ এখানে দাঁড়াতে হচ্ছে। এভাবে সবাইকে হারানো খুবই দুঃখজনক। এ সময় তিনি কথা বলতে বলতে এক সময় থেমে যান এবং তার চোখে পানি এসে যায় ৷ প্রধানমন্ত্রীকে রুমাল দিয়ে চোখ মুছতেও দেখা গেছে।

রোববার (১৪ জুন) জাতীয় সংসদে দুই নেতার মৃত্যুতে আনা এক শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এ অধিবেশন শুরু হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত ১০ জুন সংসদে শোক প্রস্তাব নিতে হলো। মাত্র কয়েকটা দিন গেল এরমধ্যে আমরা হারালাম পার্লামেন্টের একজন বিশিষ্ট সদস্য মোহাম্মদ নাসিমকে। সকালবেলা তার মৃত্যুর খবর আর রাতে শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। একই দিনে দু’টি মৃত্যু আমাদের। এটা আমাদের জন্য কষ্টকর। বার বার পার্লামেন্টে আমাদের শোক প্রস্তাব নিতে হচ্ছে।

শেখ হাসিনা প্রয়াত দুই নেতার পরিবারের সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমাদের ধৈর্য ধরতে হবে। স্বজন হারানোর বেদনা কি সেটা আমি জানি। যারা চলে গেছেন তাদের বেহেশত নসিব করুক সেই কামনা করি।

নাসিমকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন. তাদের পরিবারের সঙ্গে বঙ্গবন্ধু পরিবারের পারিবারিক আসা-যাওয়া সম্পর্ক ছিল। জাতির জনককে হত্যার পর খন্দকার মোশতাক মনসুর আলী সাহেবকে ডেকে নিয়ে মন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন। তিনি বলেছিলেন তোমার হাতে বঙ্গবন্ধুর রক্ত তুমি ভাবলা কি করে তোমার ক্যাবিনেটে আমি আসবো। এটা কখনোই আমার কাছ থেকে যোগ্য নয়। তারপর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। মোহাম্মদ নাসিম রাজনৈতিক নেতা হিসেবে অত্যন্ত দক্ষ ছিলেন। ১৯৮১ সালে আমি যখন দেশে ফিরে আসি তখন আমার একটা প্রচেষ্টা ছিল শহীদ পরিবারের যারা ছিল তাদের একসাথে করে নিয়ে আসা। আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করা এবং আরও শক্তিশালী করে গড়ে তোলা। সেই কাজটি করতে গিয়ে সবসময় নাসিম ভাইকে পাশে পেয়েছি। নাসিম ভাই অত্যন্ত সাহসী ছিলেন। তিনি যে কোনো অবস্থা মোকাবিলা করতে যেতেন। আর এটা করতে গিয়ে বারবার তার ওপর হামলা হয়।

নাসিমের ওপর বারবার আঘাত এসেছে। তার ওপর জিয়াউর রহমানের আমলে অত্যাচার হয়েছে। জেনারেল এরশাদ সাহেব যখন ক্ষমতায় তখনও। এরপরে খালেদা জিয়ার আমলের অত্যাচারের সীমা ছিল না। তারপর ওয়ান-ইলেভেনে তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়। সেই সময় তার ব্রেন স্ট্রোক করে। তিনি ব্রেন স্ট্রোক করে পড়েছিলেন। ওই সময় কারাবন্দি সালমান এফ রহমানের জন্য তার ছেলে জেলগেটে একটা অ্যাম্বুলেন্স সবসময় রাখতো। নাসিম ভাইকে হাসপাতালে নিতে ওই আম্বুলান্স ঠাঁই দেওয়া হয়েছিল। তখন সময়মতো হাসপাতালে পৌঁছাতে পেরেছিল বলেই সে যাত্রায় নাসিম ভাই বেঁচে গিয়েছিল।ওই ব্রেন স্টোকে তার একটা দিক প্যারালাইজড হয়ে যায়। ওই সময় অ্যাম্বুলেন্সটা না পাওয়া গেলে হাসপাতালে না নেওয়া গেলে তিনি মরে পড়ে থাকতেন। এছাড়া নাসিমকে বারবার রাজপথে অত্যাচার-নির্যাতন সহ্য করতে হয়েছে।আমরা আন্দোলন সংগ্রামের সময় অনেকগুলো দল নিয়ে যখন সংঘটিত হয়েছি, ঐক্য গড়ে তোলার চেষ্টা করেছি। ওই ঐক্যের দায়িত্বটা আমি নাসিম সাহেবকে দিয়েছিলাম।অন্যান্য দলের সঙ্গে চমৎকার সম্পর্ক নিয়ে চলার দক্ষতা তার ছিল এবং সে তা পছন্দ করতেন। ১৪ দলকে তিনি সংগঠিত রেখেছেন। জোট শরিকরাও তাকে পছন্দ করতেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহকে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি দেশে আসার পর থেকে আব্দুল্লাহ সাহেবকে পেয়েছি। তিনি মনি ভাইয়ের সঙ্গে ছিলেন। নির্বাচন পরিচালনাই নয়, নির্বাচনী এলাকার সবকিছু তার দেখাশোনা করতে হতো। রাজনীতিতে গোপালগঞ্জবাসী কঠিন সময়ের মুখোমুখি হয়েছেন। জিয়াউর রহমান, এরশাদ, খালেদা জিয়া যখন যে ক্ষমতায় এসেছে তাদের একটি লক্ষ্যই ছিল গোপালগঞ্জের ওপর হাত দেওয়া। আমাদের বহু নেতাকর্মী নির্যাতিত হয়েছে। সেই দুঃসময়ে সংগঠনকে ধরে রাখা, নেতা-কর্মীদের দিকে নজর দেওয়া, এ কাজগুলো অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে আব্দুল্লাহ সাহেব করে গেছেন। আমি সরকার বা বিরোধী দল যেখানেই থাকি না কেন আমার নির্বাচনী এলাকা আব্দুল্লাহ সাহেব দেখতেন। তার মৃত্যুতে আমাদের জন্য বিরাট ক্ষতি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কওমি মাদ্রাসা কয়েকটি ভাগে বিভক্ত ছিলো। সেইগুলোকে এক করে তাদের একটি সনদ দেওয়া। নীতিমালা ও আইন করা- সেই আইন পাস করার জন্য আমি আব্দুল্লাহ সাহেব ও আমার মিলিটারি সেক্রেটারি জয়নাল আবেদিন সাহেবকে দায়িত্ব দিয়েছিলাম। তারা দুজনই ঠাণ্ডা মাথার লোক। সুন্দরভাবে কাজটি করেছেন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!