1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০১:৪৮ অপরাহ্ন

পাবনার চকবিলে জলাবদ্ধতা, কৃষকের দুর্ভোগ

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১৮ জুন, ২০২০
  • ২৮৩ জন পড়েছেন

পাবনার সুজানগর উপজেলার পশ্চিম চকবিলের চারদিকে রাস্তা হওয়ায় বিলে তৈরি হয়েছে জলাবদ্ধতা। ফলে শেষ প্রান্তে পশ্চিম চক বিলের ফসল আনা নেওয়ায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে কৃষকরা। বিলের জলাবদ্ধতা নিরসনে খাল খননসহ রাস্তার দাবি তাদের।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, বিলের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাসহ কৃষিফসল আনা নেওয়ার জন্য একটি খাল খনন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারিভাবে অর্থ বরাদ্দ হলে বিলের কাজ করা হবে।

জানা গেছে, উপজেলার পশ্চিম চক বিলে জলাবদ্ধতার কারণে আহম্মেদপুর ও রানিনগর এই দুটি ইউনিয়নের শত শত কৃষক ফসলের মাঠের আইল ধরে মাথায় করে ফসল আনা নেওয়া করে। দীর্ঘদিনের এই কষ্ট থেকে পরিত্রাণ চায় কৃষকরা। শুষ্ক মৌশুমে পানির সমস্যা আর বর্ষায় কচুরি পানাতে ছেয়ে থাকে পুরো ফসলের মাঠ। কৃষকের সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেই কৃষি বিভাগের। কষ্টের কারণে অনেক কৃষক ধান চাষ না করে শুধু এক ফসল চাষ করছে তারা। আর এই কারণে অনাবাদী থাকছে ফসলের মাঠ। এই সুযোগে স্থানীয় একটি চক্র ফসলের মাঠে খনন করছে পুকুর। উপজেলার দুটি ইউনিয়ন ও ৫টি গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার কৃষকের চাষাবাদের এই ফসলি মাঠে জলাবদ্ধতা নিরসন ও খাল খননসহ সড়কের দাবি কৃষকদের।

সম্প্রতি ওই অঞ্চলের কৃষকদের সমস্যার বিষয় জানতে সরেজমিনে গিয়ে দেখতে পাওয়া যায়, প্রায় তিন কিমি দৈর্ঘ্য ও চার কিমি প্রস্থ এই বিলের প্রায় ৪ থেকে ৫ হাজার হেক্টর ফসলি জমি রয়েছে। তিন ফসলি জমিতে এখন দুটি করে ফসল আবাদ হচ্ছে। শুকনা মৌশুমে পানির সমস্যা আর ভরা মৌসুমে বর্ষায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে পানিবন্ধি হয়ে থাকছে ফসলের মাঠে। ফলে একদিকে যেমন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে, অপরদিকে পানি বৃদ্ধির সময় পুরা ফসলের মাঠে কচুরি পানায় ভরে থাকছে। শুষ্ক মৌসমে কচুরি পানা সরিয়ে কষ্ট করে ফসল উৎপাদন করতে হচ্ছে কৃষকদের। আর এ কারণে ফসল উৎপাদনে কৃষকদের গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ। ফসল আনা নেওয়ার জন্য বিলে নেই যাতায়াতের ব্যবস্থা। ফসলের মাঠের আইল ধরে অনেক কষ্ট করে ফসল আনতে হয় তাদের। সম্প্রতি একটি চক্র অসহায় কৃষকদের সুযোগ নিয়ে ফসলের মাঠে মাছ চাষের জন্য পুকুড় খনন করছে অবৈধভাবে। এতে ওই অঞ্চলের কৃষকরা পড়েছে চরম বিপাকে।

পাবনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আজহার আলী বলেন, কৃষকদের সমস্যা সমাধানের জন্য আমরা সব সময় কাজ করছি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পরে দেশে আর কোনো ফসলের জমি পতিত রাখা যাবে না। ওই বিল এলাকা পরিদর্শন করেছি। সংশ্লিষ্ট উপজেলা কৃষিকর্মকর্তাসহ সংসদ সদস্যের সাথে আলোচনা হয়েছে। বিলের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাসহ কৃষিফসল আনা নেওয়ার জন্য একটি খাল খনন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। সরকারিভাবে অর্থ বরাদ্দ হলে বিলের কাজ করা হবে।

সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিনুজ্জামান শাহিন বলেন, সমস্যা সমাধানের জন্য ১১০ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমদনের অপেক্ষায় রয়েছে। এই সুজানগর উপজেলার সারা বাংলাদেশের মধ্যে কৃষি ফসল বিশেষ করে পেঁয়াজ, রশুন ও পাটের জন্য বেশ সমৃদ্ধ অঞ্চল। উর্বর এই ফসলের জমিতে ধানও হয়ে থাকে বেশ ভালো। এই অঞ্চলের কৃষকদের বাইরে থেকে চাল কিনতে হয় না। চেষ্টা করছি কৃষকদের সমস্যা সমাধানের জন্য। এই অর্থ বছরে প্রকল্পটি অনুমোদন হলে বিল উন্নয়নসহ শহর রক্ষার মুজিব বাঁধ সংস্কার করা হবে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!