1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শ্রীমঙ্গলে করোনাকালে শিশুশ্রমে ঝুঁকছে শিশুরা
সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১২:৫১ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে করোনাকালে শিশুশ্রমে ঝুঁকছে শিশুরা

  • প্রকাশিত : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০
  • ৩১১ জন পড়েছেন

এস কে দাশ সুমন,শ্রীমঙ্গল : দক্ষিণ এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ ও ভয়াবহ সমস্যা হলো শিশু শ্রম। বাংলাদেশে শিশুশ্রমিকের সংখ্যা ৫-১৪ বছর বয়সী মোট শিশু জনসংখ্যার ১৯%। বাংলাদেশ জাতীয় শ্রম আইন ২০০৬ অনুযায়ী ১৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের কাজ করানো হলে তা শিশু শ্রমের অন্তর্ভুক্ত বলে গণ্য হবে। কিন্তু মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় দিন-দিন বেড়ে চলেছে শিশুশ্রম। যে বয়সে শিশুদের স্কুলে যাবার কথা সে বয়সে উপজেলার রাস্তা, হাট-বাজার ও পয়েন্টে গেলেই চোখে পড়ে নানাবিধ শিশুশ্রমের দৃশ্য।

প্রচন্ড রোদে কর্মব্যস্ততায় সময় পার করছে এসব কোমলমতি শিশুকিশোররা। ফলে ক্ষুধা, দারিদ্র্য ও অভাব-অনটনে পড়ে খুব সহজেই শ্রমিকের জীবন বেছে নিচ্ছে কোমলমতি শিশুরা। কেউ পড়াশোনা বাদ দিয়ে ওয়াকর্শপের কাজে এসেছে, কেউ আবার সংসারের জন্য জীবিকা নির্বাহ করতে এসেছে এই ঝুঁকিপূর্ণ কাজে। পরিণত বয়সের পূর্বে শিশু-কিশোরদের ঝুঁকিপূর্ণ কাজের সঙ্গে জড়িত না হওয়ার জন্য নানা সরকারি নীতিমালা থাকলেও এ ব্যাপারে প্রশাসনের কোনো নজরদারি নেই।

শহরের মৌলভীবাজার রোড, হবিগঞ্জ রোড, ভানুগাছ রোড, জালালিয়া রোডের মোটরসাইকেল মেরামতের দোকান, সিএনজি অটোরিকশা মেরামতের দোকান, সেলুন, চায়ের দোকানে কাজ করতে দেখা গেছে শিশুকিশোরদের। ওয়ার্কশপের মতো ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুকিশোর জড়িয়ে পড়েছে এখানে। এছাড়া রিকশা চালিয়ে শিশুকিশোর পরিবারকে আর্থিক যোগান দিচ্ছে। সিএনজি, অটোরিকশা, গাড়ির হেলপারসহ বিভিন্ন ধরনের কাজে বেশিরভাগ শিশুকিশোর শ্রমিক হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। আর কর্মক্ষেত্রে বেশিরভাগ সময়ই শিশুকিশোররা হচ্ছে নির্যাতনের শিকার।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন গ্রামের দরিদ্র মা-বাবার ১০-১৬ বছর বয়সী শিশু-কিশোররা রীতিমতো শিশুশ্রমে জড়িয়ে জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে। যে বয়সে তাদের বই, কলম ও খাতা হাতে নিয়ে স্কুলে যাওয়ার কথা, সেই বয়সে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে জড়িয়ে পড়ছে হতভাগ্য এসব শিশুকিশোর।

শিশুশ্রম এবং শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ আইনের সুনির্দিষ্ট কিছু বিধান থাকলেও তা প্রয়োগ করা হচ্ছে না এখানে। উপজেলার একাধিক শিশুকিশোর শ্রমিক পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শ্রীমঙ্গল উপজেলার শিশুশ্রম বৃদ্ধির প্রধান কারণ হচ্ছে অসচ্ছল ও অভাব-অনটনের সংসার পরিচালনা। এ কারণে উপজেলায় দিন-দিন শিশু শ্রমিকের হার বৃদ্ধি পাচ্ছে এমনটাই জানালেন শিশুকিশোর শ্রমিকদের অভিভাবকরা। ফলে দেশ গড়ার কারিগররা বিভিন্ন শ্রমকাজে লিপ্ত হয়ে অকালে ঝরে যাচ্ছে তারা।

মুরাদ মিয়া (১১) নামের এক শিশুকিশোর জানায়, করোনার কারণে আব্বায় কাজ শিখার লাগি ওয়ার্কশপে দিছে। সাব্বির হোসেন (১২) নামে আরেক কিশোর জানায়, টাকা পয়সার অভাবে পড়াশোনা বাদ দিয়ে এ কাজে আসছে। টায়ার খোলার কাজ করা মিঠুন চন্দ্র ঋষি (১২) জানায়, সে চতুর্থ শ্রেণী পর্যন্ত পড়াশোনা করেছে। কিন্তু তার দুষ্টুমি করা দেখে পরিবার থেকে পড়াশোনা বাদ দিয়ে এ কাজে দিয়েছে তার বাবা। আরেক কিশোর জানায়, সে পড়াশোনা করছে তবে করোনার কারণে স্কুল বন্ধ তাই পরিবার থেকে তাকে ওয়ার্কশপের কাজ শিখতে দিয়েছে।

শ্রম আইন, ২০০৬ (সংশোধন-২০১৩) প্রণয়ন করা হয়েছে। এ আইনের ৩৪ ধারায় বলা হয়েছে, কোনো পেশায় বা প্রতিষ্ঠানে শিশু ও কিশোরকে নিয়োগ করা যাবে না বা কাজ করতে দেয়া যাবে না। ৩৯ ধারা অনুযায়ী, সরকার সময়ে-সময়ে গেজেট বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ঝুঁকিপূর্ণ কাজের তালিকা ঘোষণা করবে এবং ওই ঝুঁকিপূর্ণ কাজে কোনো কিশোরকে নিয়োগ করা যাবে না। একই আইনের ৪৪ (৩) ধারায় বলা হয়েছে, কোনো প্রতিবন্ধী শ্রমিককে বিপজ্জনক যন্ত্রপাতির কাজে অথবা ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োগ করা যাবে না। শিশু শ্রম বন্ধ করার জন্য সরকার পৃথক শ্রম আদালত প্রতিষ্ঠা করেছে। কিন্তু শিশু শ্রম বন্ধে সরকারের পাশাপাশি সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে পালন করতে হবে ইতিবাচক ভূমিকা। তবেই দেশের শিশুরা ভবিষ্যতে মানবসম্পদ তথা জাতির প্রকৃত কর্ণধার হয়ে উঠতে পারবে। কিন্তু শিশুশ্রম বন্ধে এখানে কেউ এগিয়ে আসছেন না।

এদিকে শিশুশ্রম নিষিদ্ধ করে বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন ২০১৮-এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। কেউ যদি শিশু শ্রমিক নিয়োগ করে, তাঁকে পাঁচ হাজার টাকা অর্থদণ্ড করা হবে। ১৪ থেকে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত কিশোররা হালকা কাজ করতে পারবে। আগে ১২ বছরের শিশুরা হালকা কাজের এ সুযোগ পেত।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকিরুল হাসান জানান, শ্রীমঙ্গল উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তিযোগ্য শতভাগ শিশুকিশোর ২০২০ শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হয়েছে। করোনা পরিস্থিতির কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় আমরা ভার্চুয়াললি সকল শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের সাথে যোগাযোগ করছি। এ যোগাযোগে আমরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা এবং বাড়িতে বসে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করছি। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তিকৃত বা ভর্তিযোগ্য কোনো শিশুকিশোর শিশুশ্রমে নিয়োজিত আছে মর্মে আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ বা তথ্য নাই। এ বিষয়ে কোনো সুস্পষ্ট অভিযোগ বা তথ্য পেলে আমরা সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি প্রয়োজনে প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে তা দূরীকরণে কার্যকর উদ্যোগ নেব। সদাসয় সরকার শতভাগ শিশুর প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে অঙ্গীকারবদ্ধ এবং তা বাস্তবায়নে আমরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি।

এব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাহেদা আকতার বলেন, কোথায় কোথায় শিশুশ্রম হচ্ছে তা সব তথ্য দেওয়ার জন্য। খোঁজ নিয়ে দেখবেন তারা কি আসলে শিশুশ্রমের ভিতরে পড়ে কি না।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!