1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার মিথ বনাম ফ্যাক্ট
শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার মিথ বনাম ফ্যাক্ট

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০২০
  • ১৪৯ জন পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক:: নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার এই দিনগুলোতে ইমিউন সিস্টেম বা শরীরের রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থা নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। নিজেকে ঝুঁকিমুক্ত করার আশায় অধিকাংশ মানুষ বাজার থেকে নানা ধরনের ভিটামিন কিনে কিনে ঘরে আছেন।

এখন প্রশ্ন হলো আসলেই কি এসবে শরীরের স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধক শক্তি বৃদ্ধি পায়? গবেষকেরা বলছেন, এভাবে ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী করার চেষ্টায় থাকলে ইতিবাচক ফল পাওয়া যায় না; বরং প্রমাণিত প্রাকৃতিক পদ্ধতির ওপর ভরাস রাখা উচিত।

১. মূল ব্যাপার হলে ইমিউন সিস্টেমের কোনো অংশকে বেশি শক্তিশালী করার কোনো পদ্ধতি নেই। তবে প্রতিরোধক ব্যবস্থা যাতে ঠিকমতো কাজ করে, তার ব্যবস্থা নেয়া যায়।

২. রোগের বিরুদ্ধে যে শ্বেত রক্তকণিকা লড়াই করে তার ক্ষমতা কোনো খাবার দিয়ে স্বাভাবিকের চেয়ে ‘বাড়াতে’ পারবেন না। মূল ব্যাপারটি হল আপনি নিয়মিত সুষম খাবার খেলে, পর্যাপ্ত ঘুমালে, নির্দিষ্ট ভিটামিন (যেমন ডি) গ্রহণ করলে আপনার ইমিউন সিস্টেম তার ‘সেরা পারফর্ম্যান্স’ আপনাকে ‘উপহার’ দেবে। অর্থাৎ নভেল করোনাভাইরাসের মতো রোগের ক্ষেত্রে সে নিজের ক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহার করবে।

৩. ইমিউন সিস্টেমে ঘুম খুব গুরুত্বপূর্ণ। ৮ ঘণ্টা না ঘুমালে এটি নানাভাবে রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থাকে প্রভাবিত করে। অসুস্থতার সময় ভালো ঘুমাতে পারলে দ্রুত সুস্থ হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

৪. মানসিক চাপ কমান। ভাইরাস নিয়ে যত চিন্তা করবেন, আপনার শারীরিক জটিলতা তত বাড়বে। মানসিক চাপে থাকলে রোগ ঠিকমতো প্রতিরোধ করতে পারে না শরীর। তাই মানসিক প্রশান্তিদায়ক কাজের সঙ্গে নিজেকে যুক্ত রাখতে হবে। মেডিটেশনও খুব উপকারী।

৫. ব্যয়াম: হালকা এবং মাঝারি ব্যয়াম করটিসলের মতো স্টেরয়েড হরমোনের স্তর কমিয়ে দেয়। এর ফলে আপনার রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা ঠিক থাকে। যারা ভারি ব্যয়াম করতে চান না, তারা দিনে ৩০ মিনিটের মতো মাঝারি ধরনের ব্যয়াম করতে পারেন। আপনার অস্থিসন্ধিগুলো যেন ‘বসে’ না থাকে সেটিই মূলত নিশ্চিত করা প্রয়োজন।

৬. ব্যয়াম করতে গিয়ে আবার অতিরিক্ত করবেন না। তাতে হিতে বিপরীত হয়। তাই সাতদিন না করে পাঁচদিন করা উচিত।

৭. ইমিউন সিস্টেমকে ঠিক রাখতে প্রতিদিন দই বা প্লেইন ইয়োগার্ট খাওয়া উচিত। এটি আপনার শরীরের ভালো ব্যাকটেরিয়াকে টিকে থাকতে আরও সাহায্য করে, যাতে তারা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারে।

৮. খুব প্রয়োজন না হলে অ্যান্টিবায়োটিক খাবেন না। এতে আপনার শরীরের ভালো ব্যাকটেরিয়ার ক্ষতি হয়।

৯. শরীর খারাপ করলে নিজের খাদ্যতালিকা যাচাই করুন। প্রতিদিনি সবুজ শাকসবজি, ফলমূল খাওয়ার চেষ্টা করুন।

১০. ধূমপান ত্যাগ করুন। এটি ইমিউন সিস্টেমের ক্ষতি করে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!