1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০১:২৩ অপরাহ্ন

বৈরুত বিস্ফোরণ: গৃহবন্দীর মুখে বন্দরের বিপুলসংখ্যক কর্মকর্তা

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ৬ আগস্ট, ২০২০
  • ২২৫ জন পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক:: বৈরুতে ভয়াবহ জোড়া বিস্ফোরণের ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে লেবানন।

বিশাল এলাকা চুর্ণবিচুর্ণ করে দেয়া এই বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত ১৩৫ জন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ৫ হাজার। তিন লাখের মতো মানুষ ঘরবাড়ি হারিয়ে রাস্তায় মানবেতর জীবন যাপন করছে।

বৈরুতের বন্দরের একটি রাসায়নিকের গুদাম থেকে ওই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে দেশটির সরকার জানিয়েছে।

গুদামটিতে প্রায় ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মজুত ছিল। ছয় বছর ধরে কোনো ধরনের সুরক্ষা ব্যবস্থা ছাড়াই এত বিপুল রাসায়নিক দ্রব্য সেখানে পড়ে ছিল।

এর মধ্যে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। তদন্তের জন্য বন্দরের বিপুল সংখ্যক কর্মকর্তাকে গৃহবন্দী করা হচ্ছে।

লেবাননের তথ্যমন্ত্রী মানাল আবদেল সামাদ বলেছেন, ২০১৪ সাল থেকে বন্দরের যেসব কর্মকর্তা সেখানে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মজুত রাখা, সেগুলো তত্ত্বাবধান করা এবং এর কাগজপত্র যারা দেখাশুনা করেছেন সবাইকে গৃহবন্দি করা হবে।

তিনি বলেন, আমি মনে করি এটি অযোগ্যতা এবং সত্যিকার অর্থে খারাপ ব্যবস্থাপনা। এর জন্য পূর্ববর্তী সরকারগুলোর অনেক দায় আছে। এমন বিস্ফোরণ ঘটার পর কারা এর জন্য দায়ী সেটা নিয়ে আমরা চুপ থাকতে চাই না।

এদিকে রাসায়নিক দ্রব্য মজুত নিয়ে বিচার বিভাগ ও সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগকে দায়ী করছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

ধারণা করা হচ্ছে ২০১৩ সালে একটি জাহাজে করে এই অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট বৈরুত বন্দরে এসেছিল।

বৈরুত বন্দরের প্রধান এবং কাস্টমস প্রধান স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তারা জানতেন যে অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট বিপজ্জনক এবং বন্দরের নিরাপত্তার কথা ভেবে সেখানে রাখা রাসায়রিক পদার্থ রপ্তানি কিংবা বিক্রি করে দেবার জন্য আদালতের অনুমতি চেয়ে একাধিকবার চিঠি লেখা হয়েছিল।

কাস্টম প্রধান বাদরি দাহের জানান, এই রাসায়নিক দ্রব্য সরিয়ে নিতে তার কর্তৃপক্ষ একাধিকবার বলেছিলেন কিন্তু তা করা হয়নি।

এ দিকে বুধবার থেকে দেশটিতে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় শোক শুরু হয়েছে। এর মধ্যে লেবাননের জনগণ বিক্ষুব্ধ হয়ে পড়েছে। ঘটনার জন্য দায়ীদের কঠোর শাস্তি চান তারা।

ক্ষুব্ধ জনগণের প্রশ্ন, ছয় বছর ধরে কীভাবে এত বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক দ্রব্য মজুত করা হলো। বন্দর কর্তৃপক্ষ ও যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অবহেলা ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন তারা।

লেবাননের সুপ্রিম ডিফেন্স কাউন্সিল বলেছে, এই ঘটনার জন্য যারা দোষী হবে তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি দেয়া হবে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!