1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
কমলগঞ্জের শমশেরনগর ইউনিয়নে প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ
শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫২ অপরাহ্ন

কমলগঞ্জের শমশেরনগর ইউনিয়নে প্রকল্পের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৪২ জন পড়েছেন
মামলা পরিচালনায় উচ্চ আদালতের আদেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি::
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর ইউনিয়ন পরিষদে জনপ্রতিনিধি কর্তৃক প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ বিষয়ে নিম্ন আদালতে মামলা পরিচালনায় উচ্চ আদালত আদেশ দিয়েছেন। গত ২৭ ফেব্রুয়ারী হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ এই আদেশ প্রদান করেন।

জানা যায়, কাজ না করে প্রকল্পের নামে সরকারি টাকা আত্মসাৎ দেখিয়ে শমশেরনগর ইউপি চেয়ারম্যান মো. জুয়েল আহমদ, সদস্য ফারুক আহমদ, সীতারাম বীন, আব্দুস সোবহান, ইয়াকুব আলী, তাজুদ আলী, হাফিজুল হক, জিতু মিয়া, আজব আলীসহ ১১ জনকে অভিযুক্ত করে ২০১৬ সনে প্রাক্তন চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক ও দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব অভিযোগের প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ৪৬.০১৮.০৩২.০০.০০.০৪৮.১৫ স্মারক মূলে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসককে প্রেরণ করেন। তবে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না হওয়ায় পরবর্তীতে ২০টি প্রকল্পের নাম উল্লেখ করে তিনি দুর্নীতি দমন ট্রাইব্যুনাল মৌলভীবাজারে পিটিশন মামলা দায়ের করেন।

মামলার প্রেক্ষিতে আদালত দুর্নীতি দমন কমিশন কার্যালয়ে তদন্তের জন্য প্রেরন করেন। কমিশনের তদন্তকালে ৯টি প্রকল্পে কাজ হয়নি মর্মে অভিযুক্তদের টাকা ফেরত দেয়ার চিটি দিলে অভিযুক্ত জনপ্রতিনিধিরা সোনালী ব্যাংক কমলগঞ্জ শাখায় ১০ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৩৭ টাকা জমা দেন। পরবর্তীতে মৌলভীবাজারের বিশেষ জজ আদালত এই মামলা খারিজ করে দেন।

এরপর আব্দুল গফুর হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে ফৌজদারী সংশোধনমূলক বিচার চেয়ে আবেদন করেন। গত ২৭ ফেব্রুয়ারী হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের বিচারক মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও কে.এম.হাফিজুল আলম আদেশ প্রদান করেন। আদেশে বলা হয় মৌলভীবাজারের সিনিয়র স্পেশিয়াল জজ আদালত মামলা দুর্ণীতি দমন কমিশনের বিধি অনুসরণের পরে মামলাটি পরিচালনা করার নির্দেশনাও আইন অনুসারে প্রয়োজনীয় অনুমোদনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে হাইকোর্টের বাদী পক্ষের আইনজীবি এড. নির্মলেন্দু দেব উচ্চ আদালতের রায় ও আদেশের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামীগণ আত্মসাৎকৃত টাকা জমা দিলেও অপরাধ থেকে রেহাই পাওয়া যায় না। এখন মৌলভীবাজারের সিনিয়র স্পেশিয়াল জজ আদালতে নিয়মিত মামলা পরিচালিত হবে।

এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান জুয়েল আহমেদ বলেন, কাগজ বিহীন কোন মন্তব্য দিতে পারবো না,আমার কাছে কোর্ট থেকে এখনো কোন কাগজ আসেনি।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!