1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
এক প্ল্যাটফর্মে মাতৃত্বের সব খবর
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন

এক প্ল্যাটফর্মে মাতৃত্বের সব খবর

  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৭৩ জন পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক::

যৌথ পরিবার বা বৃহত্তর সামাজিক আবহে মাতৃত্বকে যেভাবে উদ্‌যাপন করা হয়, শহর বা একক পরিবারে তা খানিকটা ভিন্ন। সেখানে হবু বাবা-মাকে সামাল দিতে হয় অনেক কিছু। অনেক সময় প্রয়োজনীয় তথ্যের জন্য পাওয়া যায় না সাহায্যকারী।

যেকোনো বিষয়ে অনলাইনে ভূরি ভূরি তথ্য পাওয়া গেলেও বাংলায় একই প্ল্যাটফর্মে ‘মাতৃত্ব’ নিয়ে তেমন একটা কাজ দেখা যায় না। সেই বিষয়টি সহজ করে দিয়েছে মাতৃত্ব ডটকম (matritto.com) নামের ওয়েব পোর্টাল।

কয়েক বছরে ইউনিক এই প্ল্যাটফর্মে প্রকাশিত হয়েছে দুই শতাধিক লেখা। যার ষাটটির বেশি চিকিৎসকদের মাধ্যমে রিভিউ করা।

ওয়েবটির লক্ষ্য প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠাতা ও সঞ্চালক ইসরাত জাহান বললেন, “মাতৃত্ব, গর্ভধারণ ও শিশুপালন সংক্রান্ত বিষয়ে বাংলাভাষী মা-বাবাদের প্রাথমিক তথ্যের উৎসে পরিণত হওয়া আমাদের লক্ষ্য। মাতৃত্ব এখনো সীমিত সংখ্যক মা-বাবাদের কাছে পৌঁছায় যারা মূলত ইন্টারনেট ব্যবহারকারী মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত। আমরা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মাঝে আমাদের কনটেন্ট পৌঁছে দিতে চাই। একই সঙ্গে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী একটি সামাজিক ব্যবসায় উদ্যোগে পরিণত হওয়াও আমাদের বর্তমান লক্ষ্য।”

নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই প্ল্যাটফর্মটির অনুপ্রেরণা পান তিনি। বলেন, “আমার বড় মেয়েটা হওয়ার সময় বেবি সেন্টার (ইংরেজি ভাষার ওয়েব প্ল্যাটফর্ম) নিয়মিত দেখতাম। কীভাবে কী করতে হয়, সপ্তাহে সপ্তাহে আপডেট ইত্যাদি। বাংলাতে এ রকম একটা সাইটের অভাববোধ করতাম। সেই চিন্তা থেকেই ২০১৫ সালে মাতৃত্ব ওয়েবসাইটের যাত্রা শুরু। খুবই আস্তে আস্তে আমি আর বাচ্চাদের বাবা মিলে ঠেলে, ধাক্কা দিয়ে কাজ শুরু করেছিলাম।”

পাঁচ বছরে ২ লাখের বেশি পাঠক ‘মাতৃত্ব’ থেকে লাভবান হয়েছেন বলে উল্লেখ করেন তিনি। এখানে একজন পাঠক কী উপকার পেতে পারেন? “মাতৃত্ব থেকে একজন সুবিধাভোগী কনটেন্ট পড়া, ভিডিও দেখা, ফেসবুক কমিউনিটিতে অংশগ্রহণ, প্রশ্নোত্তর ও অভিজ্ঞতা শেয়ার করা থেকে পরামর্শমূলক (ডাক্তারি পরামর্শ ব্যতীত) সহায়তা পেয়ে থাকেন। ইন্টারনেটের বিস্তারের সঙ্গে সঙ্গে ব্যবহারকারীদের মাঝে বাংলায় এ সব কনটেন্ট ও সেবার চাহিদা অনেক, কিন্তু এ ধরনের উদ্যোগের সংখ্যা বেশ সীমিত। তাই মাতৃত্ব থেকে যখন একজন সুবিধাভোগী বিনা মূল্যে বা নামমাত্র খরচে এসব সেবা পান, তারা বেশ উপকৃত হন। শহুরে মধ্যবিত্ত সমাজে একক পরিবারে একজন মা যখন তার সন্তান পালন নিয়ে বিভিন্ন সমস্যায় পড়েন, বিভিন্ন জিজ্ঞাসা যখন তার মনে জাগে, মাতৃত্ব কমিউনিটি তখন তার অন্যতম ভরসার স্থল।”

এখন পর্যন্ত বাংলাভাষী ইন্টারনেট ব্যবহার কারি মা ও বাবা সাইটটির পাঠক। বাংলাদেশ ছাড়াও আছেন ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, সৌদি আরব, মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশের বসবাসকারীরা। ইশরাত জাহান মনে করেন, ইন্টারনেটের ব্যবহার বিস্তারের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের পাঠক তালিকায় দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মা-বাবারাও অন্তর্ভুক্ত হবেন।

হবু মা-বাবারা এই সাইটে কী খোঁজেন? রাজধানীর নাম একটি কলেজের ফিন্যান্সের প্রভাষক ও বিভাগীয় প্রধান ইশরাত বলেন, “মাতৃত্ব সাইটে গর্ভধারণ পূর্ব বিভিন্ন বিষয়, যেমন; গর্ভধারণ নিয়ে সমস্যা, গর্ভধারণের সঠিক সময়, স্বাস্থ্যগত ও মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে কনটেন্ট আছে। বাবা-মা হতে চাওয়া পাঠকেরা আমাদের সাইটে এসব বিষয় নিয়ে পড়েন। তা ছাড়া মা হতে চাওয়া নারীরা আমাদের কমিউনিটিতে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর পেয়ে থাকেন।”

তবে সংশ্লিষ্টদের চ্যালেঞ্জও কম নয়। যার অন্যতম হলো ‘স্বেচ্ছাশ্রম’। “টিমের সদস্যরা মাতৃত্বে স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে কাজ করছেন। কিন্তু এই উদ্যোগকে বড় করতে স্বেচ্ছাশ্রম যথেষ্ট না। আমাদের এখন বড় চ্যালেঞ্জ হলো মাতৃত্বকে একটি স্বাবলম্বী উদ্যোগে পরিণত করা যাতে আমরা পাঠকদের চাহিদার বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে নতুন ধারার কনটেন্ট বা প্রোগ্রাম নিয়ে আসতে পারি। এ জন্য আমরা বিভিন্ন রকম স্পনসরশিপ ও ইমপ্যাক্ট বিনিয়োগের কথা বিবেচনা করছি।”

বর্তমানে এই প্ল্যাটফর্মে ৬ স্বেচ্ছাসেবী চিকিৎসক ও পুষ্টিবিদ যুক্ত আছেন। কনটেন্টের মধ্যে আরও রয়েছে অনলাইনে ফ্রি ও পেইড কোর্সে অংশগ্রহণের সুযোগ।

২০১৫ সালে কাজ শুরুর পর মাতৃত্ব যখন বেশ ধীরে এগোচ্ছিল, তখন ইশরাতের সঙ্গে যোগ দেন তার বন্ধু কানাডা প্রবাসী আফিফা রায়হানা ও পরবর্তীতে জার্মান প্রবাসী রাবেয়া রওশীন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজনেস গ্র্যাজুয়েট আফিফা মাতৃত্বের অন্যতম জনপ্রিয় সিরিজ ‘গর্ভধারণের প্রতি সপ্তাহ’-এর লেখক এবং প্রাকৃতিক প্রসব, মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে পড়াশোনা করছেন। অন্যদিকে রাবেয়া ঢাবি-তে অর্থনীতি নিয়ে পড়াশোনা করলেও বর্তমানে তার ভালোবাসার জায়গা প্রাকৃতিক প্রসব। প্রাকৃতিক প্রসব নিয়ে মুসলিম বিশ্বে বহুল পরিচিত আমানি বার্থ-এর বাংলা টিমের প্রধান তিনি। বাংলাভাষীদের কাছে আমানি বার্থ কনটেন্ট নিয়ে আসার জন্য আফিফা ও রাবেয়া যৌথভাবে কাজ করছেন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!