1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
শ্রীমঙ্গলে স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়িতে অনশন
বৃহস্পতিবার, ১১ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৫৭ অপরাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে স্ত্রীর অধিকার পেতে স্বামীর বাড়িতে অনশন

  • প্রকাশিত : শনিবার, ৩১ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫১৩ জন পড়েছেন

শ্রীমঙ্গল সংবাদদাতা:

বৃষ্টি দাস (ছদ্মনাম) সংগীতশিল্পী হিসেবে একটি গানের অনুষ্ঠানে পরিচয় যুবকের সাথে। তারপর থেকে চলে নিয়মিত কথপোকথন ক্ষুদে বার্তা আদান প্রদান। একসময় ভালোবাসার প্রস্তাব নিয়ে আসেন সেই যুবক কিশোর গোস্বামী প্রথমে রাজি না হলেও পরবর্তীকালে ভালোলাগা থেকে ভালোবাসা। অতঃপর দীর্ঘদিন যাবত প্রেম করার পর কিশোর গোস্বামীর কাছ থেকে আসে মন্দিরে বিয়ের প্রস্তাব। প্রথমে বৃষ্টি অপারগতা প্রকাশ করলেও কিশোরের চাপে সিঁদুর পরিয়ে স্থানীয় একটি কালি মন্দির বিয়ে করেন দুজন। বিয়ের করার পর স্বামী কিশোর গোস্বামীর বাড়িতে না গিয়ে কিশোরের পরামর্শে নিজের বাড়িতেই থাকেন স্ত্রী। কিছুদিন পর বিষয়টি জানাজানি হলে বৃষ্টি তার স্বামী কিশোর গোস্বামীকে চাপ দেয় বাড়িতে নেওয়ার জন্য, কিন্তু স্বামী কিশোর বাড়িতে না নিয়ে বিভিন্ন কথা বলে সময় ক্ষেপন করতে থাকেন, এক সময় স্ত্রীকে অস্বীকার করলে তা কোনভাবেই মেনে নিতে পারেনি বৃষ্টি। শেষমেশ কোন উপায় না পেয়ে দুঃখ, কষ্ট নিয়ে স্ত্রীর অধিকারের দাবিতে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে স্বামীর বাড়িতে অনশন করছেন বৃষ্টি দাস (ছদ্মনাম)। কথাগুলো বলছিলেন বৃষ্টি দাস।

জানা যায়, শ্রীমঙ্গল উপজেলার উত্তর উত্তরসুর মধ্যপাড়ার প্রানকৃষ্ণ গোম্বামীর ছেলে কিশোর গোস্বামী শহরের শাপলাবাগ এলাকার গৌতম দাসের মেয়ে বৃষ্টি দাসের (ছদ্মনাম) সাথে ২০১৮ সালে মন দেওয়া নেওয়া শুরু হয়। এরপর ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসের ২২ তারিখ বৃষ্টি দাসকে (ছদ্মনাম) নিয়ে কিশোর গোস্বামী ফুলছড়া চা বাগানের কালীটিলায় কালী মাতাকে সাক্ষী করে কিশোর গোস্বামী বৃষ্টি দাসের (ছদ্মনাম) কপালে সিঁদুর পড়িয়ে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর হতে চতুর কিশোর গোস্বামী স্ত্রীকে বিভিন্ন জায়গায় নিয়ে রাত্রিযাপন করে।

স্ত্রী বৃষ্টি দাস (ছদ্মনাম) জানায়, বিয়ের পর
একপর্যায়ে তিনি অন্তসত্বা হয়ে পড়লে কিশোর গোস্বামী তাকে শ্রীমঙ্গল কলেজ রোডস্থ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার ইউরিন পরীক্ষা করায়, সেখানে তার নাম লিখায় মিস প্রিয়া। ইউরিন পরীক্ষায় পজিটিভ আসলে স্বামী কিশোর গোস্বামী সেটাকে কৌশলে নষ্ট করায়। নারীর জীবনের মূল্যবান সম্পদ নষ্ট করাসহ স্বামী কিশোর তাকে ঘরে তুলবে বলে কালক্ষেপন করে চলেছে। ইতিমধ্যে কয়েকবার সালিশ বৈঠক ও হয়েছে। সালিশে প্রানকৃষ্ণ গোস্বামী তাকে বধু হিসেবে গ্রহন করার জন্য অনুরোধ করা হয়। কিন্তু এখনো গ্রহন করেনি। স্ত্রী হিসেবে তাকে যতক্ষণ মেনে না নেয়া হবে তিনি অনশন চালিয়ে যাবেন। বৃষ্টি দাস (ছদ্ধনাম) তার স্ত্রীর অধিকার ফিরে পেতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

শুক্রবার ৩০ অক্টোবর সকাল হতে বৃষ্টি দাস (ছদ্মনাম) স্বামী কিশোর গোস্বামীর বাড়ির আঙ্গিনায় অবস্থান করছেন। এসময় বৃষ্টি দাস বলেন, আজ আমি কিশোরের ঘরে ঢুকব না হয় এখানে আত্মহত্যা করব।

এর পূর্বেও বৃষ্টি দাস (ছদ্মনাম) স্বামী কিশোরের বাড়িতে অনশনে গেলে শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়, প্রানকৃষ্ণ গোস্বামী, ওয়ার্ড মেম্বার দুদু মিয়া, শ্রীমঙ্গল থানার পুলিশ পরিদর্শক সোহেল রানা, শাপলাবাগ স্বরলিপি সংঘের সম্পাদক অসীম মজুমদার শ্রীমঙ্গল ব্যবসায়ী সমিতির সদস্য পরিমল পাল সহ এক সমঝোতা বৈঠক হয়। বৈঠকে প্রানকৃষ্ণ গোস্বামী বলেন আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে বৃষ্টি দাসকে (ছদ্মনাম) আমার পুত্রবধু হিসেবে বাড়িতে নিয়ে যাব। এ কথার প্রেক্ষিতে বৃষ্টি দাসকে (ছদ্মনাম) বাড়িতে ফিরিয়ে আনা হয়। অজয় নামে অত্র এলাকার এক যুবক বলেন আমরা চাই মেয়েটি তার স্বামীর সংসার করুক এতে আমরা সকলের সহযোগিতা কামনা করি।

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চাইলে কিশোর গোস্বামী উনার পিতা প্রানকৃষ্ণ গোস্বামী উনাদের পরিবারের কাউকেই উত্তর উত্তরসুর এলাকার বাড়িতে পাওয়া যায়নি,পরবর্তীকালে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগ করা হলেও তাদের মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

এবিষয়ে কথা হয় তিন নং সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ভানুলাল রায়ের সাথে তিনি জানান বিষয়টি নিয়ে আমরা অনেকেই চেষ্টা করি সমাঝোতার কিন্তু কোন পক্ষই নিজেদের অবস্থান থেকে সরে না আশায় বিষয়টি শেষ করা যায়নি এখন আইনের মাধ্যমেই বিষয়টি শেষ হবে বলে আশা রাখছি।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে ডাঃ হরিপদ রায় বলেন আমরা বেশ কয়েকজন এই ঘটনা নিয়ে দুই পক্ষকে নিয়ে বসি এবং দীর্ঘক্ষণ আলোচনা করি এতে বিষয়টি মিমাংসা না হওয়ায় আমরা তাদেরকে আইনের আশ্রয়ে যেতে বলি।

শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস ছালেক জানান, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি সমাজের গণ‍্যমান‍্য ব‍্যাক্তিবর্গের মাধ‍্যমে বিষয়টি নিয়ে অভিভাবকদের নিয়ে বসা হয়েছিলো শুনেছি কিন্তু শেষপর্যন্ত ঘটনাটি শেষ না হওয়ায় মেয়েটি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে। আমরা গুরুত্বসহকারে বিষয়টি দেখছি এ ব‍্যাপারে যথাযথ আইনানুগ ব‍্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০১৯-২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!