1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ বশির আহমেদ চৌধুরী - কমলগঞ্জের ডাক
বৃহস্পতিবার, ২৬ নভেম্বর ২০২০, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন

অবসরপ্রাপ্ত মেজর মোহাম্মদ বশির আহমেদ চৌধুরী

  • প্রকাশিত : শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০
  • ২৭৭ জন পড়েছেন

ব্যক্তিগত তথ্য:

জন্ম: ২৯ অক্টোবর ১৯৭২ইং।
সাগৈ: আরিবাম
ঠিকানা:
গ্রাম- পূর্ব কোনাগাঁও, ডাক- আদমপুর বাজার, উপজেলা- কমলগঞ্জ, জেলা- মৌলভীবাজার, বাংলাদেশ।
পিতা: হামিদ রেজা চৌধুরী (মরহুম)
মা: মোছা: জহুরুন্নেসা (কন্ঠা মায়ুম)
স্ত্রী: হুসেন আরা বেগম। সিলেট মহিলা কলেজ থেকে স্নাতক। তিনি বাংলাদেশের এশিয়ান ইউনিভার্সিটি থেকে সমাজবিজ্ঞান ও নৃ-বিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর পাশ করেছেন।
সন্তান:

ফাতেমা তুজ জোহরা, ভারতের অ্যামিটি বিশ্ববিদ্যালয় কলকাতায়, ফলিত সাইকোলজিতে (তৃতীয় সেমিস্টার) বি এ অনার্স পড়ছে।
আবদুল হাদী মুহাম্মদ সাইফুল্লাহ একই বিশ্ববিদ্যালয়ে, অ্যানিমেশন (বিএফএ অ্যানিমেশন, প্রথম সেমিস্টার) উপর চারুকলায় স্নাতকোত্তর পড়ছে।

ভাইবোন:
মোঃ নজরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক, কমলগঞ্জের আদমপুর বাজারে বসবাসকারী একজন উদ্যোক্তা।
রাজিয়া সুলতানা, মোঃ ওবায়দুল্লাহ খানের সাথে বিবাহিতা, যিনি আসাম পুলিশে চাকরি করেন। পাইলাপুল, কাছার, আসামে বাস করছেন।

অভিভাবক :
ইঞ্জিনিয়ার মোঃ আবদুল মজিদ চৌধুরী, মেজর বশিরের চাচাত ভাই, যিনি তাঁর স্ত্রী পারভিন মজিদের সাথে দীর্ঘ ৯ বছর ধরে তাকে প্রতিপালন ও পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন। ইঞ্জিনিয়ার মজিদ যখন নোয়াখালীতে ড্যানিশ এনজিও ড্যানিডায় কর্মরত ছিলেন, তখন তিনি আরও কয়েকজন কাজিনকেও পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন।
শিক্ষা:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ

কোনাগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মৌলভীবাজার ও হরিণারায়ণপুর স্কুল, নোয়াখালী।
মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ঃ
ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ, চট্টগ্রাম।
স্নাতকঃ
বাংলাদেশ সামরিক একাডেমী, চট্টগ্রাম।
মাস্টার্স-

সরকার ও রাজনীতি বিষয়ে- এশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা থেকে ।
মানবসম্পদ পরিচালনায় দক্ষতা বিষয়ে -ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ থেকে।

চাকুরী :
১৯৯৩ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পদাতিক কর্পোরেশনে কমিশন প্রাপ্ত হন।
সামরিক প্রশিক্ষণ ও কোর্স:
অফিসারদের অস্ত্র কোর্স-
বেসিক কমান্ডো কোর্স-
তরুণ কর্মকর্তা বেসিক কোর্স-
জুনিয়র কমান্ড ও স্টাফ কোর্স-
নিরস্ত্র যুদ্ধের কোর্স-
বিল্ডিং ক্লাইম্বিং কোর্স-
সিনিয়র কমান্ড ও স্টাফ কোর্স-
জাতিসংঘ প্রশিক্ষণ:
উন্নত লিঙ্গ মূলধারার প্রশিক্ষণ-
মানবাধিকার-
শিশু অধিকার এবং শিশু সুরক্ষা-
ইউনাইটেড নেশনের কাছ থেকে স্বীকৃতি:
২০০৪ সালে UNAMSIL মেডেল, সিয়েরালিয়ন ,পশ্চিম আফ্রিকায় কর্মতৎপরতার স্বীকৃতি সরূপ।
২০১০ সালে UNAMID মেডেল, দারফুর, সুদানে কর্মতৎপরতার স্বীকৃতি সরূপ ।
সমিতির সদস্যতা:
ওল্ড ফৌজিয়ানস অ্যাসোসিয়েশন (ওএফএ)।
ক্যাডেট কলেজ ক্লাব লিঃ (সিসিসিএল), ঢাকা।
আর্মি গল্ফ ক্লাব (এজিসি), ঢাকা।
চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রাক্তন ছাত্র।
মণিপুরী মুসলিম সৈনিক সমিটির চেয়ারম্যান, আদমপুর বাজার, মৌলভীবাজার।

দেশ ভ্রমণ:
ইউকে
ফ্রান্স
বেলজিয়াম
সংযুক্ত আরব আমিরাত
সিয়েরালিও
সোদান
ভারত
বিভিন্ন সংস্থায় পরিষেবার সংক্ষিপ্তসার:
সামরিক ক্ষেত্রে:
তিনি বেশিরভাগ সময় সেনাবাহিনীতে অ্যাডমিন এবং এইচআর বিশ্লেষক, অপারেশন পরিকল্পনাকারী, এইচআর পরিকল্পনাকারী, সুরক্ষা তত্ত্বাবধায়ক, সুরক্ষা সংগঠক এবং উচ্চপদস্থ নিরাপত্তার পরামর্শদাতা হিসাবে অতিবাহিত করেছিলেন। তিনি কমান্ডিং অফিসারের কাছে confidential staff officer হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং ৭৫০ সদস্যের সামরিক দলের মানব সম্পদ ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে ছিলেন। তিনি ইউনিটের পদায়ন, ছুটি, প্রশিক্ষণ, প্রশাসন, রসদ ইত্যাদির দেখভাল করতেন। তার গণনামূলক এবং সূক্ষ্ম সুরক্ষা বিশ্লেষণের কারণে কাপ্তাই এবং মহলছড়ি অঞ্চল (পার্বত্য চট্টগ্রাম) -র বিদ্রোহ দমন অভিযানে নির্ধারিত কাজটি তাঁর সংস্থা কোনও দুর্ঘটনা ছাড়াই সম্পন্ন করতে পেরেছেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে পিস টাইম মেডেল প্রবর্তনে তিনি সাফল্যের সাথে অংশ গ্রহণ করেছেন। পিস টাইম মেডেল নীতি -২০১৩ প্রণয়নে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের কমিটিতে তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্য হিসাবে নিযুক্ত হন।

প্যারা মিলিটারিতে (বিজিবি):
তিনি ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সীমান্ত সম্মেলন এবং পতাকা বৈঠক সফলভাবে আয়োজন করেছিলেন। তিনি আন্ডার কমান্ড এবং চোরাচালান বিরোধী প্রশিক্ষণের পাশাপাশি ব্যাটালিয়নের রিক্রুটিং অফিসার হিসাবেও সার্থকতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন।

বাংলাদেশ পুলিশে (র‌্যাব):
তিনি উপ-পরিচালক প্রশাসনের দায়িত্বপালনকালে বার্ষিক কয়েক কোটি টাকার উৎস তহবিল সফলভাবে পরিচালনা ও বিতরণ করেছিলেন। তিনি কর্তৃপক্ষের সম্পূর্ণ বিশ্বাস ও আস্থা নিয়ে র‌্যাব বাহিনীর বিভিন্ন আইটেমে বাৎসরিক কয়েক কোটি টাকা সংগ্রহ করেছিলেন। তিনি প্রশিক্ষণ, ইউনাইটেড নেশনস এ মোতায়েনের জন্য কর্মী নির্বাচন, প্রশাসনিক বিষয়াদি এবং র‌্যাব কর্মীদের শৃঙ্খলাজনিত মামলারও তদারকি করেছিলেন।
তিনি ২০১৭ সালের এপ্রিলে মেডিকেল গ্রাউন্ডে অবসর গ্রহণ করেন।

লেখক:-
মোঃ খুরশেদ আলী
প্রধান শিক্ষক,ভান্ডারীগাঁও উচ্চ বিদ্যালয়
কমলগঞ্জ,মৌলভীবাজার

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!