1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:২১ পূর্বাহ্ন

ছাত্রলীগে শূন্য পদে বিতর্কিতরা

  • প্রকাশিত : বুধবার, ৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২০২ জন পড়েছেন

অনলাইন ডেস্ক::

দীর্ঘ ১৬ মাস অপেক্ষার পর পূরণ হলো বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ৬৮ শূন্যপদ। ৩০১ সদস্যের কমিটির মধ্যে ঝুলে থাকা পদগুলো অনেক নাটকীয়তা শেষে গত রোববার পূরণ করা হয়। কিন্তু অভিযোগ রয়েছে, শূন্যপদগুলো পূরণ করতে গিয়ে বিতর্কিত নেতাদের স্থান দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটিতে। এদের মধ্যে কয়েকজনের বয়স উত্তীর্ণ, বিবাহিত, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত, মামলার আসামি, চাঁদাবাজ, মাদকসেবী, সভাপতির মোটরসাইকেল চালিয়ে নেতা হওয়াসহ ছাত্রদল থেকে আগত বলে অভিযোগ রয়েছে।

বিভিন্ন অভিযোগে ২০১৯ সালের ২১ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি পাওয়া কয়েকজন নেতা প্রতিদিনের সংবাদকে জানান, নতুন করে যাদের পদায়ন করা হয়েছে তাদের মধ্যে অনেকের বয়স বেশি, বিবাহিত, ছাত্রদল ও শিবিরের সঙ্গে জড়িত। যে অভিযোগে তাদের অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে, এর চেয়ে গুরুতর অভিযোগ আছে সদস্য পদপ্রাপ্ত নেতাদের বিরুদ্ধে। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় কমিটির ৩৩ নেতাকে কোনো কিছু না জানিয়ে, তাদের পদ থেকে সরিয়ে নতুনদের পদায়ন করা হয়েছে। এ নিয়ে অনুসন্ধান ও ছাত্রলীগের একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলেছে প্রতিদিনের সংবাদ।

দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে শূন্যপদ পূরণ নিয়ে বিভিন্ন অজুহাতে ১৬ মাস কাটিয়ে দেন ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। কারণ হিসেবে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, শূন্যপদগুলোতে অধিকতর যোগ্যরা যেন স্থান পায় এবং বিতর্কিতরা যাতে ফের পদে না আসে, এ বিষয়গুলো ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে, তাই এসব পদ পূরণে বিলম্ব হচ্ছে।

এত সময় নিয়ে পর্যবেক্ষণ, তদন্তের পরও বিতর্কিতরা ফের কীভাবে স্থান পেয়েছে এসব বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। বারবার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে কল করে সাড়া পাওয়া যায়নি। এমনকি মেসেজ দিয়েও তাদের সঙ্গে এ নিয়ে আলাপ করা যায়নি।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে ছাত্রলীগের সমন্বয় করছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান। বিতর্কিত নেতাদের ছাত্রলীগের পদায়নের বিষয়ে কথা হয় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর এই সদস্য প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে তাদের বিষয়ে আমরা এখনো সঠিক জানি না। তাই এখন তাদের বিষয়ে মন্তব্য করা কঠিন। তবে যাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ প্রমণ পাওয়া যাবে, তাদের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম প্রতিদিনের সংবাদকে বলেন, ‘এগুলো আসলে সংগঠনকে বিতর্কিত করতে কিছু সংস্থা কাজ চালিয়ে যায়। যাদের নামে অভিযোগ দেওয়া হচ্ছে, এগুলোর কোনো প্রমাণ আছে? যদি প্রবলেম থাকে তাহলে সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ পদপ্রাপ্ত নেতাদের মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মামলা থাকতেই পারে, এটা তো দোষের কিছু না। রাজনীতি করলে মামলা হতে পারে। এখানে বিষয়টা হলো, সে অপরাধ করেছি কি না?’

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রের ৫-এর ‘ক’ উপধারায় বলা হয়েছে, অনূর্ধ্ব ২৮ বছর বয়সি বাংলাদেশের যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় বা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক স্বীকৃত যেকোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র বা ছাত্রী বাংলাদেশ ছাত্রলীগের প্রাথমিক সদস্য হতে পারেন। অথচ নতুন পদপ্রাপ্ত ইন্দ্রনীল দেব শর্মা রনির সেই বয়স পেরিয়ে গেছে ৫ বছর আগে। সদ্য ঘোষিত কমিটিতে ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক পদ পেয়েছেন তিনি। এসএসসির মার্কশিটে রনির জন্মতারিখ দেওয়া রয়েছে ২২ জুন ১৯৮৭ সাল। সেই হিসেবে তার বর্তমান বয়স ৩৩ বছর ৭ মাস। জানা যায়, শোভন-রাব্বানী ছাত্রলীগের দায়িত্বে থাকা সময়ে ইন্দ্রনীল দেবকে দপ্তর সম্পাদক করতে চেয়ে ছিল, কিন্তু তার বয়স বেশি হওয়ায় তখন তাকে পদ দেওয়া হয়নি। কিন্তু বর্তমান কমিটিতে পেয়ে গেছেন পদ।

এমনই আরেকজন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহসভাপতি হয়েছেন দেবাশীষ সিদ্ধার্থ। তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকীর স্বাক্ষর জাল করে ল্যাবরেটরি স্কুল অ্যান্ড কলেজে দুই ছাত্র ভর্তি করাতে গিয়ে ধরা পড়ার অভিযোগ আছে। সেসময় তিনি ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের ছাত্র ও স্কুলবিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। পরে তাকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়। তার বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলাও রয়েছে। এক মামলায় তিনি প্রায় ৬ মাস জেলও খেটেছেন অথচ তাকে ফের ছাত্রলীগের সহসভাপতি করা হয়েছে।

শূন্যপদে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহসভাপতি হয়েছেন রাকিবুল হাসান নোবেল। তার বিরুদ্ধে সরাসরি ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগ রয়েছে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে তিনি ছাত্রদল করতেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তিনি দল পরিবর্তন করে ছাত্রলীগ শুরু করেন। ছাত্রদলের নেতাদের সঙ্গে তার বহু ছবি রয়েছে ছাত্রলীগের নেতাদের কাছে।

এদিকে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতাদের গাড়ির ‘ড্রাইভার’ হিসেবে পরিচিত লাভ করেন আমানুল্লাহ আমান। কেন্দ্রীয় গ্রন্থনা ও প্রকাশনা বিষয়ক উপসম্পাদক হয়েছেন তিনি। অভিযোগ আছে, ছাত্রলীগের কোনো কর্মসূচিতে দেখা না গেলেও একসময়ে ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান জয়ের ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল চালকের ভূমিকায় তাকে বরাবরই দেখা গেছে। শুধু তাই নয়, ছাত্রলীগের সভাপতি জয়ের বিভিন্ন ব্যক্তিগত কাজেও সরব ছিলেন আমন। সেই সুবাদেই তাকে নতুন করে পদ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের মধ্যে। এর আগে তিনি ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি প্রাপ্ত গোলাম রাব্বানীর মোটরসাইকেল চালক হিসেবেও ছিলেন বলে জানা যায়।

সমালোচিত ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ নেতা শুভ্রদেব হালদার বাপ্পীকে কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতির পদ দেওয়া হয়েছে। তার নামে আছে চাঁদাবাজির মামলা। সংগঠন নির্ধারিত বয়স পেরিয়ে বৈবাহিক জীবনে এক সন্তানের জনক তিনি। একসময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পোশাকে ডাকাতি-ছিনতাই করা সংঘবদ্ধ চক্রের মূল হোতা ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগের এই যুগ্ম আহ্বায়ক। যাত্রাবাড়ী থানায় দিন-দুপুরে ছিনতাই করা একটি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে এমন তথ্য পায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবি)। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে আসায় সমালোচিত হন তিনি।

এবার কেন্দ্রীয় কমিটির উপপ্রচার সম্পাদক হয়েছেন ফেরদৌস মাহমুদ পলাশ। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ২০১৮ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের আগে ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন তিনি। সে সংক্রান্ত অনেক প্রমাণ রয়েছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কাছে। এসব অভিযোগে শোভন-রাব্বানী দায়িত্বে থাকা সময়ে তাকে পদ দেয়নি। কিন্তু জয়-লেখক কমিটিতে তিনি ঠিকই পদ পেয়েছেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ছাত্রলীগ নেতা আল আমীন রহমান একসময় বিশ^বিদ্যালয়ে বাম ছাত্রসংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তাকে দেওয়া হয়েছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিষয়ক সম্পাদক।

কেন্দ্রীয় কমিটিতে সহসভাপতির পদ পেয়েছেন আরিফ হোসেন রিফাতের পরিবার আওয়ামী লীগ বিরোধী বলে অভিযোগ আছে। তার আপন চাচা জামালপুর জেলা সদর যুবদলের সভাপতি। একইভাবে উপ-আইন সম্পাদক করা হয়েছে শাহেদ খানকে। ব্যক্তিগত জীবনে বিবাহিত শাহেদের বিরুদ্ধেও বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসীমউদ্দীন হলের ক্যান্টিনে চাঁদাবাজির অভিযোগ রয়েছে। ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান সানীর বিরুদ্ধে মাদক সেবন ও বিক্রেতার অভিযোগ আছে।

নতুন পদপ্রাপ্ত নেতাদের অনেকেই বিবাহিত। এদের মধ্যে উপগণশিক্ষা সম্পাদক ওয়াহিদ খান রাজ ও সহসভাপতি শাহরিয়ার সিদ্দিঈ শিশিম বিবাহিত। সহসভাপতি মহিন উদ্দিনের বয়স বেশি, সহসভাপতি মিজানুর রহমান পিকুকের বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় চাঁদাবাজি ও মাদক মামলা রয়েছে। সহসভাপতি সাগর হোসেন সোহাগের বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগ রয়েছে। উপস্বাস্থ্য ও চিকিৎসা সম্পাদক রাজেশ বৈশ্য ঢাকা মেডিকেল কলেজের মেডিকেল অফিসার।

এদিকে বর্তমান কমিটিতে অনেকেই বিবাহিত, চাকরিজীবী, বিভিন্ন মামলার আসামি। তবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের সংগঠনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বিবাহিত নেতাদের মধ্যে রয়েছেন সহসভাপতি ইসরাত কাশফিয়া ইরা, জিয়ান আল রশিদ, সুরঞ্জন ঘোষ, কৃষি শিক্ষা সম্পাদক মাকসুদুর রহমান মিঠু, উপছাত্র বৃত্তি সম্পাদক ইউসুফ উদ্দিন খান, উপ-স্কুল ছাত্র সম্পাদক রোকনুজ্জামান রোকন।

উপমানব সম্পদ সম্পাদক হিরণ ভূঁইয়া ঢাকা কলেজ থেকে বহিষ্কৃত ও অস্ত্র মামলার আসামি। আরেক উপমানব সম্পদ সম্পাদক বেলাল হোসেন মুন্না বিবাহিত ও ব্যবসায়ী। সহসভাপতি আরিফুল ইসলাম আরিফ বয়স উত্তীর্ণ, সহসভাপতি খালিদ হাসান নয়ন মেডিকেল প্রশ্ন ফাঁসে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। সাংগঠনিক সম্পাদক মামুন বিন সাত্তার বিবাহিত, উপগ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক নাজমুস সাকিব বিবাহিত এবং সরকারি চাকরিজীবী; উপগ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক সৌরভ নাথের (আসল নাম সৌরভ সাহা) বিরুদ্ধে চাঁজাবাজির মামলা রয়েছে। উপপাঠাগার সম্পাদক আতিকুল ইসলাম ছাত্রদলের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ছাত্রদলের সঙ্গে তার ছবিও রয়েছে কমিটির নেতাদের কাছে।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!