1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন

সিলেট-আখাউড়া পথে ৬ মাসে ৭ ট্রেন দুর্ঘটনা

  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৭৭ জন পড়েছেন

রুহুল ইসলাম হৃদয়:

২০১৯ সালের জুনে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার বরমচালে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় মারা যান চার যাত্রী ও আহত হন শতাধিক। প্রতিবছর সিলেট-আখাউড়া রেলপথে ১৫-২০টি ছোট ছোট দুর্ঘটনা ঘটছেই।

২০২০ সালে দীর্ঘদিন করোনার কারণে রেল চলাচল বন্ধ থাকলেও সে বছরের আগস্ট থেকে চালু হওয়ার পর থেকে চলতি বছরের গতকালের দূর্ঘটনা নিয়ে ছয় মাসে সিলেট-আখাউড়া রেলপথে সাতটি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা যায়, ১৭৯ কিলোমিটার আখাউড়া-সিলেট রেলপথের পুরোটাই জরাজীর্ণ। এই সেকশনে ৯০ শতাংশ সেতুই মেয়াদোত্তীর্ণ। তার মধ্যে এই রুটের সব ট্রেনের বগি-ইঞ্জিন অনেক পুরনো। বর্তমানে কিছুটা ভালো মানের বগি ব্যবহৃত হচ্ছে।

রেলওয়ের প্রকৌশল বিভাগের তথ্যমতে, নির্মাণের ৫০-৫৫ বছর পরই সেতুর মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। অথচ এ রুটের অনেক সেতুর বয়সই ৭০ বছর পেরিয়েছে। রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এ রকম ১৩টি স্পটকে ‘ডেডস্টপ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। সিলেট থেকে মোগলাবাজার স্টেশন পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে আটটি এবং মোগলাবাজার থেকে আখাউড়া পর্যন্ত ১৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে পাঁচটি সেতু ডেডস্টপ।

২০২০ সালের ১৬ আগস্ট থেকে শুক্রবার পর্যন্ত এ রুটে সাতটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাত ১২টার দিকে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের মাইজগাঁও এলাকায় তেলবাহী ট্রেনের ১০টি বগি লাইনচ্যুত হলে ওই স্থানে প্রায় ৮০০ মিটার রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এর আগে ৬ ডিসেম্বর দুপুরে মাধবপুরের শাহাজীবাজার রেলস্টেশনের পাশে তেলবাহী ট্রেনের পাঁচটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এ কারণে ১৩ ঘণ্টা সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকে।

এর আগে ১১ নভেম্বর সিলেট ও মৌলভীবাজারের মধ্যবর্তী ভাটেরায় মালবাহী ট্রেনের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়ে পড়ে। এতে বন্ধ হয়ে যায় সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ।

এর আগে গত ৭ নভেম্বর সাতটি বগি নিয়ে শ্রীমঙ্গলে তেলবাহী একটি ওয়াগন লাইনচ্যুত হয়। এতে ২৩ ঘণ্টা বন্ধ থাকে রেল যোগাযোগ। একই স্থানে ২০১৮ সালে ১১টি বগি নিয়ে একটি যাত্রীবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয়।

চলতি বছরের ৩০ অক্টোবর সিলেট রেলস্টেশনে ডকইয়ার্ডে দাঁড়িয়ে থাকা পাহাড়িকা এক্সপ্রেসের সামনের দিকে ধাক্কা দেয় জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস। ১৫ সেপ্টেম্বর সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার মাইজগাঁও এলাকায় তেলবাহী ওয়াগনের একটি বগি লাইনচ্যুত হয়। ২৩ আগস্ট যাত্রীবাহী ট্রেন লাইনচ্যুত হয় কুলাউড়া এলাকায়। একই স্টেশনে গত ২৪ জানুয়ারি ট্রেনের বগিতে আগুন ধরে যায়। এভাবে দুর্ঘটনা ঘটছে প্রতিনিয়তই।

তবে সাম্প্রতিক সময়ে এ রুটে সবচেয়ে বড় দুর্ঘটনা ঘটে গত বছরের ২৩ জুন। এদিন মৌলভীবাজারের কুলাউড়ার বরমচাল এলাকায় উপবন এক্সপ্রেসের পাঁচটি বগি সেতু ভেঙে ছড়ায় পড়ে যায়। এতে চারজন নিহত ও শতাধিক যাত্রী আহত হন। ২১ ঘণ্টা পর রেল চলাচল স্বাভাবিক হয়।

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!