1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
কক্সবাজারে পর্যটকদের উপচে পড়া ভীড়,হোটেল-মোটেলে ঠাঁই হচ্ছে না - কমলগঞ্জের ডাক
শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন

কক্সবাজারে পর্যটকদের উপচে পড়া ভীড়,হোটেল-মোটেলে ঠাঁই হচ্ছে না

  • প্রকাশিত : শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১০১ জন পড়েছেন

নিজস্ব প্রতিনিধি,কক্সবাজার ঘুরেঃঃ

আগে থেকে হোটেল ঠিক না করে বেড়াতে আসায় কক্সবাজারে থাকার জায়গা পাচ্ছেন না পর্যটকেরা। হোটেল-মোটেল-কটেজে জায়গা না পেয়ে হাজারো পর্যটক সৈকতের বালুচরে পায়চারি করে অথবা বিভিন্ন স্থানে রাত কাটাচ্ছেন। তাছাড়া ঘুরতে আসা গাড়িতেও রাত কাটাতে দেখা গেছে অনেক পর্যটকদের ।

শুক্রবার(২৬ফেব্রুয়ারী) সকাল থেকেই সৈকতের লাবণী পয়েন্টে নেমে দেখা গেছে, বিপুলসংখ্যক পর্যটক গোসল ও সাঁতার কাটতে ব্যস্ত। অন্যদিকে হোটেল না পেয়ে শহরের কলাতলী সড়কে দাঁড়িয়ে আছেন অসংখ্য পর্যটক। তাঁদের সঙ্গে বয়স্ক ও শিশুরা । জীবনের প্রথম বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত ভ্রমণে এসে দুর্ভোগে পড়তে হবে, তা তাঁদের জানা ছিল না বলে জানায় তারা।তবে কিছু দিন দরে পর্যটকদের উপচে পড়া ভির দেখা যায়।

শহরের সুগন্ধা সাংস্কৃতিক কেন্দ্র মোড়েও হোটেলের অপেক্ষায় বসে থাকতে দেখা গেছে শতাধিক পর্যটককে। এর মধ্যে নারী ও শিশুদের দুর্ভোগ চরমে। মুখ খুলে কাকে কি বলবে ভাবতে পারছেন না তারা আবার ভুবার মতো রাস্তার পাশে বসে থাকতে দেখা যায় তাদের।

১১৭টি কটেজ ও গেস্টহাউস নিয়ে গঠিত কক্সবাজার কটেজ মালিক সমিতির সভাপতি কাজী রাসেল আহম্মেদ বলেন, গত এক যুগে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারনে এত বিপুল পর্যটকের সমাগম কক্সবাজারে হয়নি। গত কিছু দিন আগে ও গতকাল বৃহস্পতিবার ও আজ শুক্রবারের দিনে সৈকত ভ্রমণে এসেছেন কয়েক লাখের মতো পর্যটক। তাছাড়া চার শতাধিক হোটেল-মোটেল-কটেজের কক্ষ অগ্রিম বুকিং থাকায় অনেকে বিপাকে পড়েছেন।২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পর্যটকদের সমাগম লেগে থাকবে বলে ধারণা হোটেলমালিকদের ।

হোটেল মালিকের ভাষ্যমতে, গত ১০ দিনে অন্তত সাড়ে ৬ লাখ পর্যটক সৈকত ভ্রমণে এসেছেন। এ সময় ব্যবসা হয়েছে শত কোটি টাকা।

ঘুরতে আসা পর্যটক তাহা,তুবা,তান্নী অভিযোগ করে বলেন, ‘কয়েক হাজার পর্যটক বাসে কিংবা সৈকতে পায়চারি করে রাত পার করলেও তাঁদের গোসল ও পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিয়ে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। বিশেষ করে বয়স্ক নারী,পুরুষ ও শিশুদের এই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে বেশি। সৈকতের লাবণী ও সুগন্ধা পয়েন্ট ছাড়া শহরের অন্য কোথাও শৌচাগার কিংবা চেঞ্জিং রুম নেই। তাছাড়া হোটেল গুলোতে খাবারেরও দাম রাখছেন হোটেল মালিকরা।’

ঢাকা লেক সিটি থেকে আসা মো. হাসান আল-মামুন ও সাতক্ষীরা উপজেলা থেকে আসা আজহারুল ইসলাম বলেন, ‘সৈকত এলাকার কিছু হোটেলে কক্ষের ভাড়া অতিরিক্ত হারে আদায়ের অভিযোগ আসছে। কিন্তু তা দেখার এখতিয়ার তাঁর নেই।’

ট্যুর অপারেটর অ্যাসোসিয়েশন অব কক্সবাজারের (টুয়াক) সভাপতি তোফায়েল আহমদ বলেন, ‘গত কয়েক দিনে ৭ লাখের বেশি পর্যটক কক্সবাজারে এসেছেন। এর বিপরীতে ব্যবসা হয়েছে শত কোটি টাকা। ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আরও আরো পর্যটক কক্সবাজার ভ্রমণে আসার সম্ভাবনা আছে। তখন আরও শত কোটি টাকার ব্যবসাও হবে বলে মনে করছেন তিনি।’

ট্যুরিস্টপুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কক্সবাজার(জোন) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন,’অফিসিয়ালি ভাবে ১লক্ষ ১৫ হাজারের মতো হোটেল মোটেলে থাকার কথা থাকলেও ৩ থেকে ৪ লক্ষ পর্যটন উপস্থিতি সামাল দিতে পুলিশকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। সৈকত ভ্রমণের পাশাপাশি পর্যটকেরা দলে দলে পাহাড়ি ঝরনার হিমছড়ি, দরিয়ানগর, পাথুরে সৈকত ইনানী, টেকনাফের মাথিন কূপ, নাফ নদী, মেরিন ড্রাইভ, সেন্ট মার্টিন দ্বীপ ভ্রমণে যাচ্ছেন। সেখানেও তিল ধারণের জায়গা নেই। কঠোর নিরাপত্তার কারণে কেউ কোনো সমস্যায় পড়েননি। তবে করোনা প্রাদুর্ভবাবের কারনে সরকারি ভাবে কিছু নির্দেশনা দেওয়া আছে, তা কোন ভাবে মানা সম্ভব হচ্ছে না।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো.মামুনুর রশিদ বলেন, ‘বিপুলসংখ্যক পর্যটকের নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি তাঁদের সমস্যা সম্পর্কে সজাগ আছে প্রশাসন। পর্যটকদের কাছ থেকে হোটেলের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় হচ্ছে কি না, তা তদারকির জন্য ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালত মাঠে আছে। পর্যটক হয়রানির যেকোনো অভিযোগ প্রমাণিত হলে সাথে সাথেই আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!