1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৪:০০ পূর্বাহ্ন

বসুরহাটে পুলিশ-র‌্যাবের টহল, খুলছে দোকানপাট

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ১১ মার্চ, ২০২১
  • ১৪৮ জন পড়েছেন

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এড়াতে প্রশাসন কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

নতুন করে সেখানে যেন কোনো ধরনের সহিংসতার ঘটনা না ঘটতে পারে সে জন্য পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

জেলা পুলিশের পাশাপাশি বিভিন্ন জেলা থেকে আনা হয়েছে ২৫০ জন পুলিশ সদস্য। রয়েছেন একজন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এবং প্রশাসনের একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বসুরহাটের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন স্থানে পুলিশ সদস্যরা অবস্থান নেয়।

ইতিমধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের জারি করা ১৪৪ ধারা শেষে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মোতায়েন করা হয়েছে ৩০০ পুলিশ এবং র‌্যাব সদস্য।

বসুরহাটে থাকা বেগমগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহ ইমরান দেশ রূপান্তরকে বলেন, আমাদের ২৫০ জনের ফোর্স রয়েছে। বিভিন্ন জেলা থেকে পুলিশ এসেছে। বসুরহাটের গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে পুলিশ সকাল থেকে অবস্থান করছে। টহল দিচ্ছেন র‌্যাবের সদস্যরাও।

পাশাপাশি পুলিশের একাধিক মোবাইল টিম সার্বক্ষণিক টহলে রয়েছে। তিনি বলেন, এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

প্রশাসন সূত্র জানায়, বসুরহাটের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসনের জারি করা ১৪৪ ধারার মেয়াদ বুধবার রাত ১২টায় শেষ হয়।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে নতুন করে ১৪৪ ধারা জারি না করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বসুরহাটে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন রাখা এবং টহল জোরদার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান দেশ রূপান্তরকে বলেন, কোম্পানীগঞ্জে র‌্যাবের একটি অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার মতো কোনো অনুসর্গ এখানে আমরা করতে দেব না।

স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, সকাল থেকে বসুরহাটের সবগুলো দোকানপাট খুলেছে। তবে লোক সমাগম কম। যানবাহন চলাচলও স্বাভাবিক রয়েছে।

একজন খুচরা ও পাইকারি ব্যবসায়ী বলেন, বাজারে এসব রাজনৈতিক হানাহানির কারণে এখন আর ক্রেতা আসছে না। সারা দিন বসে থাকতে হয়। অস্থিরতার কারণে আমাদের অবস্থা শোচনীয়। আমাদের পরিবারও উৎকণ্ঠিত থাকে কখন আমরা হামলার শিকার হই! গুলিবিদ্ধ হই। বোমার মুখে পড়ি।

কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, বসুরহাট বাজারটি এ অঞ্চলের সব থেকে বড় বাজার। প্রায় তিন মাস ধরে বাজারের ওপর নানা কর্মসূচির কারণে ব্যবসায়িক ক্ষতির মধ্যে রয়েছেন তারা। বসুরহাট বাজারে লোকজনের স্বাভাবিক উপস্থিতিও কমে গেছে।

বসুরহাটের ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সহসভাপতি ওমর ফারুক দেশ রূপান্তরকে বলেন, ব্যবসায়ীরা আজকে দোকানপাট খুলেছেন। আমাদের সেক্রেটারির বক্তব্যের পর আশ্বস্ত হয়েছেন। আস্তে আস্তে ক্রেতা সমাগম বাড়ছে।

অন্যদিকে ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন নিজাম বলেন, আমরা অশান্তিতে আছি। গত দু’দিন আমাদের উপর দিয়ে ঝড় বয়ে গেছে। বসুরহাট বাজারের মানুষ একটা সন্ত্রাসী তাণ্ডব দেখেছে। মানুষ আতঙ্কে ছিলো। গতকাল বুধবার ১৪৪ ধারা জারি ছিল। এখন কিছুটা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে। এ সময় তিনি এমন স্বাভাবিক অবস্থা বজায় রাখার দাবি জানান।

তিনি বলেন, মেয়র সাহেবও আজকে আমাদের দেখে গেছেন। খোঁজখবর নিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার বিকেলে বসুরহাটের রূপালী চত্বরে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খানের ওপর হামলার প্রতিবাদে সভা চলাকালে সভাস্থলের পাশে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার জের ধরে সভা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল ও সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

ঘটনার জের ধরে রাত সাড়ে নয়টার দিকে উভয় পক্ষের মধ্যে দ্বিতীয় দফা সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষে মিজানুর রহমানের সমর্থক আলাউদ্দিন (৪০) গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আহত হন অর্ধশতাধিক।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করে স্থানীয় প্রশাসন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!