1. info2@kamalgonjerdak.com : কমলগঞ্জের ডাক : Hridoy Islam
  2. info@kamalgonjerdak.com : admin2 :
  3. editor@kamalgonjerdak.com : Editor : Editor
  4. salauddinsuvo80@gmail.com : Salauddin Suvo : Salauddin Suvo
শ্রীমঙ্গলে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হয়ে চলছে ব্যবসা বানিজ্য, হুমকিতে জনস্বাস্থ্য
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১, ০৯:৫২ পূর্বাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত হয়ে চলছে ব্যবসা বানিজ্য, হুমকিতে জনস্বাস্থ্য

  • প্রকাশিত : সোমবার, ৩ মে, ২০২১
  • ৭৮ জন পড়েছেন

এস কে দাশ সুমন:

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)-র মতে, ‌‌‌‌‌‍’স্বাস্থ্যবিধি বলা হয় সেসব নিয়মাবলি ও অনুশীলনকে যেগুলো সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে এবং রোগ সংক্রমণ প্রতিরোধে সহায়তা করে।

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পরা কোভিড- ১৯ সংক্রমণের দ্বিতীয় পর্যায়ে যখন সংক্রমণের কারনে মানুষ জীবন বাঁচানোর জন্য প্রাণপণ ছুটছে। ঠিক তখনই বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে কোভিড সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য সরকারের নানাবিধ উদ্যোগের ভিতর বেড়েই চলেছে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা এবং মৃত্যুহার।

কিন্ত বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে দেশের দোকানপাট ও শপিংমল সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত খোলা রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। তবে এ সময় স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন না করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথা প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে।

পর্যটন নগরী শ্রীমঙ্গল উপজেলায়ও এর ব্যতিক্রম দেখা যায়নি, ঈদ মৌসুমকে কাজে লাগাতে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান খুলেছেন অনেকেই। কিন্ত করোনা সংক্রমণে মৌলভীবাজার জেলা যেখানে প্রথমসারির সংক্রমণ ঝুঁকিতে রয়েছে সেখানে শ্রীমঙ্গলে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান বা মার্কেটগুলোতে দেখা যায়নি স্বাস্থ্য সুরক্ষার কৌশল বা স্বাস্থ্যবিধি নীতিমালা অনুসরণ। মার্কেটে গুলোতে জনসাধারণের উপস্থিতি যেনো করোনার ভয়কেও জয় করেছে। শহরের স্টেশন রোড, ভানুগাছ রোড, পোস্ট অফিস রোড, হবিগঞ্জ রোড এ অবস্থিত ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান ও মার্কেট গুলোতে অধিকাংশ ক্ষেত্রে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়েই মাক্স ব্যাবহারে উদাসীন। কোথাও আবার ধারন ক্ষমতার চেয়ে বেশি মানুষ ঘুরছেন মার্কেটে।

শ্রীমঙ্গল স্টেশন রোডস্থ খাতুন মার্কেটের রীগ ফ্যাশনের ব্যাবসায়ী পরিতোষ দাশ বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কোনো বিকল্প নেই, কিন্ত মার্কেটে আগত ক্রেতা সাধারণের অনেকেই এ ক্ষেত্রে উদাসীন।

প্রভাষক জলি পাল বলেন, দেশের অর্থনৈতিক মন্দা কাটাতে সরকার লকডাউন শিথিল করার উদ্যোগ করেছে কিন্ত মানুষের জীবন এবং জীবিকা দুটোই রক্ষা করা অতীব জরুরী। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন হচ্ছে কিনা সেটা সার্বক্ষণিক মনিটর করাও সরকারের দায়িত্বের ভিতর পরে। কারন সংক্রমণ বেড়ে গেলে হাসপাতালে যেমন মিলবে না জায়গা, তেমনি নানাবিধ সংকটে মানুষের মৃত্যুহার বাড়বে কয়েকগুণ।

শ্রীমঙ্গল সাইফুর রহমান মার্কেটের তপু ফ্যাশনের ব্যাবসায়ী শেখ সরোয়ার জাহান বলেন, লকডাউনে আমাদের ব্যাবসার ক্ষতি সীমাহীন, দোকান ভাড়া কর্মচারী বেতন মিলিয়ে আমরা অসহায়, কিন্ত তারপরও করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে ক্রেতা বিক্রেতা উভয়কেই আরো বেশি সচেতন হতে হবে কারন প্রতিদিন দেশে সংক্রমণ ও মৃত্যুহার বাড়ছে।

শ্রীমঙ্গল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব আব্দুস ছালেক বলেন, লকডাউনে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান ও মার্কেট খোলা রাখার সরকারি সিদ্ধান্ত রয়েছে কিন্ত এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন করতে হবে। আমরা বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছি স্থানীয় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও ব্যবসায়ীদের সাথে, কিন্ত সরকারি নির্দেশনা না মেনে যারা ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করবেন তাদের বিরুদ্ধে আমরা আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করবো, প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে।

সিলেট বিভাগের সাবেক বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডাঃ হরিপদ রায় বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের কোভিড সংক্রমণের ঝুঁকি বিবেচনায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ( WHO ) এর নির্দেশনা মোতাবেক বাংলাদেশ সরকার যে নির্দেশনা প্রদান করে তা সকলেই কঠোর ভাবে মেনে চলা উচিত। সাথে প্রশাসনের উচিত সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে স্বাস্থ্যবিধির প্রতিপালন করা। এবং শ্রীমঙ্গলে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সকলের সম্মিলিত উদ্যোগ গ্রহণ করা।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী বলেন, শুধুমাত্র সরকারি নির্দেশ দিয়ে সংক্রমণ প্রতিরোধ সম্ভব নয়। জনগণের সচেতনতা ও কঠোর স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে সবাইকেই। এ ক্ষেত্রে ব্যাপক সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে ক্রেতা বিক্রেতা সবাইকেই সরকারি নির্দেশনা অনুসরণ করতে হবে। কেউ অমান্য করলে তিনি নিজেই আক্রান্ত হতে পারেন। এবং সকলেরই রয়েছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। তাই প্রশাসন সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক এ ক্ষেত্রে আইন প্রয়োগ করতে পারে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ( WHO ) এর তথ্যসূত্রে ২০১৯ সালের শেষ দিকে চীনে প্রথম কোভিড-১৯ সংক্রমণ শনাক্ত হয়। এরপরে এক বছরের বেশি সময়ে বিশ্বে ১৪ কোটি ৭২ লাখের বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন। আর প্রাণ হারিয়েছেন ৩১ লাখের বেশি

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন....

ঈদ শুভেচ্ছা

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৭৬০,৫৮৪
সুস্থ
৬৮৪,৬৭১
মৃত্যু
১১,৫১০
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
১,৪৫২
সুস্থ
৩,২৪৫
মৃত্যু
৬০
© ২০২০-২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | কমলগঞ্জের ডাক | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
Developed By : Radwan Ahmed
error: কপি সম্পূর্ণ নিষেধ !!